হেলেনা জাহাঙ্গীর ৩ দিনের জিজ্ঞাসাবাদে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্যপদ থেকে সম্প্রতি অব্যাহতি পাওয়া হেলেনা জাহাঙ্গীরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

শুক্রবার সন্ধা ৭টা ৫০ মিনিটে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে হাজির করা হয়। এ সময় গুলশান থানায় দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

 

অপরদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ডের আবেদন বাতিল চেয়ে শুনানি করেন। তা ছাড়া রাষ্ট্রপক্ষে রিমান্ডের পক্ষে শুনানি করেন মহানগর পিপি আব্দুল্লাহ আবু। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে মহানগর হাকিম রাজেশ চৌধুরী রিমান্ডের এ আদেশ প্রদান করেন।

তার আগে, দুপুরের পর থেকে আদালতে প্রবেশের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে নিরাপত্তা জোরদারের পাশাপাশি তল্লাশি বাড়িয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আদালতের প্রবেশ ও বের হওয়ার পথে সবাইকে পুলিশি জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে।

রাজধানীর কোতয়ালি জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. মুহিত কবীর সেরনিয়াবাত বলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আদালতে হাজির করা হবে। নিরাপত্তার স্বার্থে আদালত চত্বরে নিরাপত্তা জোরদার করেছি।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দিবাগত রাতে গুলশানের ৩৬ নম্বর রোডের ৫ নম্বর বাসায় দীর্ঘ প্রায় চার ঘণ্টা অভিযান শেষে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটক করে র‍্যাব। এ সময় তার বাসা থেকে বিদেশি মদ, অবৈধ ওয়াকিটকি সেট, ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও হরিণের চামড়া উদ্ধার করা হয়। আটকের পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‍্যাব সদর দফতরে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরে রাতে জয়যাত্রা টেলিভিশনের কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করেন র‌্যাব। অভিযান কালে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাদির শাহ বলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীরকে আটকের পর তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, জয়যাত্রা নামে তার একটি আইপি টেলিভিশন রয়েছে। তার দেয়া তথ্যমতে মিরপুর জয়যাত্রা টেলিভিশনের কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। কিন্তু টেলিভিশন চ্যানেলটির কোনো বৈধ কাগজপত্র ছিল না। যদিও সম্প্রচার চ্যানেল হিসেবে যেসব সেটাআপ থাকা দরকার তার সবকিছুই রয়েছে।