হাইওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর সাধারণ সম্পাদক হিমু

মাসুদ পারভেজ,টাইম ভিশন: যশোর কোতয়ালি থানা হাইওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর সাধারণ সম্পাদক হিমু নওয়াপাড়া হাইওয়ে, যশোর (কোতয়ালি থানা) কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে সভাপতি পদে এইচ এম জাহাঙ্গীর এবং মোঃ মনিরুল ইসলাম (হিমু) সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনীত হয়েছেন।

আরো সংবাদ পড়ুন –নড়াইলের সাবেক পুলিশ সুপারের সাফল্য মলিন করার হীন চেষ্টা 
গত ১০ জুলাই (শনিবার) মাদারিপুর রিজিয়ন পুলিশ সুপার এর নির্দেশে যশোর সার্কেলের এএসপি আলী আহম্মদ হাসমী’র পরামর্শ ক্রমে নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ আবদুল্লাহ স্বাক্ষরিত নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানা, যশোর হাইওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির ১৯ সদস্যের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়।
কমিটির তালিকায় মোঃ পারভেজ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, মোঃ হুমায়ন দপ্তর সম্পাদক, মোঃ মহিউদ্দিন সানি প্রচার সম্পাদক, মোঃ শরিফুল ইসলাম ক্যাশিয়ার, মোঃ মাসুদ রানা বাচ্চু ক্রিড়া সম্পাদক পদে মনোনিত হয়েছেন। এছাড়াও কমিটিতে সদস্য পদে মোঃ মিজানুর রহমান,মোঃ আজিজুল ইসলাম, মোঃ তৌফিকুল ইসলাম মুন্না, মোঃ আনিছুর রহমান, করিমুল ইসলাম (ঈমন), মোঃ মামুন হোসেন, মোঃ সাদিব, মোঃ মেহেদী হাসান হৃদয়, মোঃ রোমান আলী, মোঃ আবু সালেক, মোঃ গোলাম রসুল ও রুস্তম আলীর নাম উল্লেখ করা হয়েছে।
কমিটির নির্বাচিত সভাপতি এইচ এম জাহাঙ্গীর বলেন, “আমাকে নওয়াপাড়া হাইওয়ে, যশোর (কোতয়ালি থানা) হাইওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি নির্বাচিত করায় হাইওয়ে পুলিশ মাদারীপুর রিজিয়ন, ফরিদপুর ও নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানা, যশোরের অধিনস্থ থানা কমিউনিটি পুলিশ অফিসার, পুলিশ পরিদর্শক ও নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মহোদয়কে ধন্যবাদ জানাই। আমি হাইওয়ে পুলিশিং সংক্রান্ত সকল দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করার চেষ্টা করব। আমার কমিটির নেতৃবৃন্দকে নিয়ে সড়ক ও মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশের কার্যক্রমে সদা সহযোগিতা করে কোতয়ালি থানা হাইওয়ে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির ওপর অর্পিত সকল দায়িত্বের যথাযথ পালনে আমি অঙ্গীকারবদ্ধ।”
মূলতঃ হাইওয়ে পুলিশ বর্তমানে ৩৬ টি থানা ও ৩৭ টি ফাঁড়ি নিয়ে সড়ক ও মহাসড়কে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। প্রতিটি থানায় ০১(এক) জন পুলিশ পরিদর্শক(নিরস্ত্র) (অফিসার-ইনচার্জ) ও ০১ (এক) জন ট্রাফিক ইন্সপেক্টর(টিআই) এবং ফাঁড়ি গুলোতে সাব-ইন্সপেক্টর দায়িত্বে নিয়োজিত আছে। তবে কিছু কিছু ফাঁড়িতে বর্তমানে পুলিশ পরিদর্শক(নিরস্ত্র) দায়িত্বে নিয়োজিত আছে। হাইওয়ে অপরাধ দমন ও অপরাধ উদঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতার, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা এবং বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে পুলিশ ও ঐ এলাকার জনগণের পারস্পরিক সহযোগিতা ও যৌথ অংশীারিত্বের ভিত্তিতে সমস্যা ও সমস্যার কারণ চিহ্নিত করে প্রতিরোধমূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের উপায় উদঘাটন ও বাস্তবায়নের লক্ষে এ কমিটি গঠন করে।