অত্যাধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জাম নিয়ে উদ্বোধন হলো “বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টার”

শাহাবুদ্দিন আহমেদ,বেনাপোল: বেনাপোলে অত্যাধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জাম নিয়ে উদ্বোধন হলো “বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টার”। মঙ্গলবার বেলা ১১ টার সময় বেনাপোল রেল ষ্টেশন সড়কের অত্যাধুনিক মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে একঝাক নবীন ও প্রবীনদের সমন্ময়ে স্থাপিত ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু হয়।

সরকারের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে আনুষ্ঠানিকতার সহিত ফিতা কেটে বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মামুন খান। পরে, সেবার মান নিয়ে বিবিধ আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ¦ বজলুর রহমান চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ¦ এনামুল হক মুকুল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ নাসির উদ্দিন, শার্শা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, বেনাপোল পৌর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহ আলম হাওলাদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা দীন ইসলাম, আবু সামা, আবুল হোসেন, বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক আকবার আলী, সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু প্রমুখ।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল বাজার কমিটির সভাপতি আলহাজ¦ আজিজুর রহমান, ডাক্তার তামান্না ইসলাম উর্মি, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল মান্নান, আব্দুর রাজ্জাক, শার্শা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইয়ানুর রহমান, বেনাপোল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুর রহমান রাশু, বন্দর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক আনিছুর রহমান, সাংবাদিক আব্দুর রহিম, শাহনেওয়াজ মল্লিক স্বপন, সীমান্ত প্রেসক্লাবের সভাপতি সাহিদুল ইসলাম শাহীন, প্রচার সম্পাদক রাসেলসহ বেনাপোলের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা গ্রাম্য চিকিৎসক, সাবাংবাদিকবৃন্দ ও সূধী সমাজের বিশিষ্ঠজন।

এসময়, বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ বজলুর রহমান বলেন, এই প্রথম বেনাপোলে উন্নত জেলা শহরের মতো অত্যাধুনিক সরঞ্জাম নিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছে বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের। এখানে নামমাত্র সূলভ মূল্যে সেবা প্রদাণ করা হবে। এছাড়া, মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, সাংবাদিক পরিবারসহ অস্বচ্ছল পরিবারের সদস্যদের জন্য বিশেষ ছাড়ের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। নিয়মিত ডাক্তার বসবেন এবং সকল পরীক্ষণ অত্যান্ত দক্ষতার সহিত দেখবেন। তিনি মন্তব্য করে বলেন, অনেক অস্বচ্ছল মানুষ আছেন যারা করোনাকালীন সময়ে ১৫০০ টাকা প্রাইভেটকার ভাড়া করে যশোরসহ বিভিন্ন স্থানে রক্ত পরীক্ষা থেকে শুরু করে অনেক পরীক্ষা করাতে যায়। সেখানে দেখা যায় ৭০০ টাকার টেস্ট করাতে প্রাইভেট কারের বিল দিতে হচ্ছে ১৫০০ টাকা। এসাথে খাওয়া খরচসহ আরো অনেক খরচ থাকে। যা সহজীকরণ করতে বেনাপোলে ডাক্তার, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের উদ্যোগে গড়ে তোলা হয়েছে বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টার।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মামুন খান বলেন, বেনাপোল একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও জনবহুল শহর। দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে হওয়ায় বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দেশী-বিদেশী মানুষ এখানে যাতায়াত করেন। সেসাথে ভারতীয় ট্রাক ড্রাইভার-হেলপারদের আসাযাওয়া আছে। সীমান্ত সংলগ্ন এই শহরে বর্তমান করোনা ঝুঁকি অনেক বেশী। সবমিলিয়ে বেনাপোলে একটি হাসপাতালের খুবই প্রয়োজন ছিলো। তারপরেও বেনাপোল ডায়ানষ্টিক সেন্টার কিছুটা হলেও মানুষের সেবা প্রদাণ করতে পারবে বলে তিনি আশাবাদী।

এসময় তিনি আরো বলেন, বেনাপোলের চারপাশে করোনা রোগীর সংখ্যা দিনেদিনে বাড়ছে। সকলে মাস্ক ব্যবহার করবেন। যতক্ষণ সম্ভব ঘর থেকে বাহির হবেননা। পরিবারের একজনের মৃত্যু হলে সে পরিবারের কান্না আর সেই ব্যক্তিটির অভাব কখনই পূরণ হওয়ার নয়। এজন্য আমাদের সকলের নিজেদের উদ্যোগে স্বাস্থ্য সচেতন হতে হবে। সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের পরিচালক সাংবাদিক শেখ কাজিম উদ্দিন, কামরুল ইসলাম, খায়রুল ইসলাম প্রমুখ।