যশোরের শাখাঁরীগাতী ও পদ্মবিলার কৃষকের জমির ধান কেটে দিলেন ভাইচ-চেয়ারম্যান বিপুল

রাসেল মাহমুদ,টাইম ভিশন:
যশোর সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর ও বসুন্দিয়া ইউনিয়নের শাখাঁরীগাতী ও পদ্মবিলা এলাকার ২ কৃষকের জমির পাঁকা ধান কেটে দিয়েছে সদর উপজেলার ভাইচ-চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল। অসহায় কৃষকের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার বাস্তবায়ন ঘটাতে, কেন্দ্রীয় যুবলীগের নির্দেশে তার নেতৃত্বে যশোর সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের এক ঝাঁক যুবলীগ কর্মী কৃষকের ফসল কাঁটা এই কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। বুধবার বেলা ১০টার দিকে ১৪ নং নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের শাখাঁরীগাতী গ্রামের ধান চাষি ফারুক বিশ্বাসের ১বিঘা জমির পাঁকা ধান কেটে দেন যশোর সদর উপজেলা পরিষদের ভাইচ-চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন বিপুল সহ বিভিন্ন এলাকার যুবলীগেরর নেতাকর্মীরা।

ভাইচ-চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল বলেন, লকডাউনের তৃতীয় মেয়াদে শ্রমিক ও অর্থ সংকটের কারণে বিভিন্ন এলাকার জমির পেঁকে যাওয়া ধান কাটে ঘরে তুলতে পারছিলেন না শাখাঁরীগাতীর কৃষক ফারুক বিশ্বাস; ক্ষেতেই ধান নষ্ট হওয়ার উপক্রম হচ্ছিল। এমন খবর পেয়ে উপজেলা ভাইচ-চেয়ারম্যান ও নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান প্রার্থী রাজু আহম্মেদ সহ সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানের অন্তত ২৫-৩০ জন যুবলীগ নেতাকর্মী নিয়ে পর্যায়ক্রমে বসুন্দিয়া ও নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের ২ জন কৃষকের ৩বিঘা জমির ধান কেটে দিয়েছে। যুবলীগ নেতাকর্মীরা পাকা ধান কেটে দেওয়ায় কৃষক ফারুক হোসেন (নরেন্দ্রপুর, শাখাঁরীগাতী), শহিদুল ইসলাম (বসুন্দিয়া, পদ্মবিলা) আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।

তারা বলেন, ধান কাটার উপযুক্ত সময় হলেও অর্থ ও শ্রমিক সংকটে পড়ি। এলাকায় যে শ্রমিক পাওয়া যায় তাদের মজুরি বেশি হওয়াতে ক্ষেতের ধান পাকার পরও তা কাটতে না পারায় ক্ষতির শঙ্কায় ছিলাম। আমার এ অসহায়ত্বের কথা শুনে উপজেলা ভাইচ-চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল ভাই দলের নেতাকর্মী সাথে নিয়ে ক্ষেতের ধান কেটে দিয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা ভাইচ-চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল বলেন, করোনার মহামারি এই দুর্যোগকালীন সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর যে নির্দেশনা দিয়েছেন তার বাস্তবায়ন ঘটাতেই কেন্দ্রীয় যুবলীগের নির্দেশে এদিন সকাল থেকে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের শাঁখারীগাতী এলাকার কৃষক ফারুক হোসেন, বসুন্দিয়ার পদ্মবিলার শহিদুল ইসলামের মোট ৩ বিঘা জমির পাঁকাধান কাটে দিয়েছি। তিনি আরো বলেন আমার উপজেলার অসহায় কৃষকের ধান কেটে দেওয়ার যুবলীগের এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। এসময় তার সাথে অন্যানের মধ্য উপস্থিত ছিলেন- যুবলীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী রাজু আহম্মেদ, যুবলীগ নেতা, আশানুর, জাবের হোসেন জাহিদ, আব্দুর রহমান, হাসানুর রহমান, রেজওয়ান হোসেন মিথুন, তছিকুর রহমান রাসেল, নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জিএম সবুজ হাসান সহ দলীয় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।