যশোরে ইফতার নিয়ে ছুটছে কাজী বর্ণের ‘মানবতার ভ্যান’

যশোরে ইফতার নিয়ে ছুটছে
কাজী বর্ণের ‘মানবতার ভ্যান’

আবুল কালাম আজাদ,টাইম ভিশন24:

মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সারা দেশে চলছে লকডাউন। জরুরিসেবা বাদে সরকারি নির্দেশে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহনসহ সব প্রতিষ্ঠান। নির্দেশনায় সবাইকে ঘরে থাকতে বলা হয়েছে। এরই মধ্যে শুরু হয়েছে মুসলমান ধর্মালম্বীদের পবিত্র মাহে রমজান। ফলে বিপাকে পড়েছেন অসহায় ও খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষেরা।

দেশের এমন পরিস্থিতে সাধারণ মানুষের জন্য এগিয়ে এসেছেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক ও উদীচী যশোরের সহসভাপতি কাজী বর্ণ উত্তম। পৌরসদরের জন্য তিনি চালু করেছেন ‘মানবতার ভ্যান’। এ ভ্যানে করেই শহরের বিভিন্ন বাজার, এলাকা ও রাস্তায় অসহায়দের কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে ইফতার।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কর্মসূচির প্রথম দিনে বারান্দীপাড়ার নাথপাড়ায় প্রায় দুইশতাধিক রোজাদারের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করে ‘মানবতার ভ্যান’। কর্মসূচির দ্বিতীয় দিনে ২০ এপ্রিল অম্বিকা বসুলেনে প্রায় ২২০ নারী-পুরুষের মাঝে ইফতারি বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার (২১ এপ্রিল) তৃতীয় দিনে শহরের প্রাণকেন্দ্র দড়াটানায় অবস্থান নেয় মানবতার ভ্যান। ইফতার উপহার বিতরণে অংশ নেন জেলা যুবলীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) সৈয়দ মুনির হোসেন টগর, তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক সুবল রায়, নির্বাহী সদস্য শেখ জাহিদুর রহমান লাবু, শহর যুবলীগের আহ্বায়ক মাহমুদুল হাসান মিলু ও যুগ্ম-আহ্বায়ক সোলাইমান খান রাফেল প্রমুখ।

কাজী বর্ণ জানান, রমজান মাসে রোজাদারদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণের জন্য ব্যক্তিগত উদ্যোগে ১০ দিনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন। যার কার্যক্রম শুরু হয়েছে ১৯ এপ্রিল (সোমবার) থেকে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি ঘোষণা তাকে এ কাজে অনুপ্রাণিত করেছে।

তিনি বলেন, ‘মানবতার মা শেখ হাসিনার নির্দেশনা ‘মানবতার ভ্যান’ নামক বাহনে। নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণে সকলের নিকট এই ইফতারি একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস। যাতে সমাজের সকল বিত্তবান মানুষ এই ধারাবাহিকতা সাধারণ মানুষের মাঝে অব্যাহত রাখেন।’

বর্ণ বলেন, লকডাউন হওয়ায় অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ থাকে। ইফতারের দোকানও সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। ফলে খেটে খাওয়া মানুষ, রিকশাচালক ও দরিদ্র মানুষের একটি বিশাল অংশ ইফতারের সময়ে চরম অসুবিধার সম্মুখীন হন। এসব অসহায় মানুষের কথা চিন্তা করেই এমন উদ্যোগ।’

স্থানীয়রা জানান, ত্রাণ বিতরণে যশোরে অন্যান্য সংগঠন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের তৎপরতা না থাকায় কাজী বর্ণ উত্তমের এ উদ্যোগ সাধারণ মানুষের মাঝে কিছুটা হলেও হাসি ফোটাচ্ছে। উদ্যোগটি নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় বলে মত তাদের।