লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানোর চিন্তা

টাইম ভিশন ডেস্কঃপ্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে চলমান লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানোর সম্ভাবনা আছে। লকডাউন ঈদের ছুটি পর্যন্ত বহাল রাখার প্রয়োজন হতে পারে । বর্তমানে যে মাত্রার লকডাউন চলছে অর্থাৎ শিল্পকারখানা ও ব্যাংক খোলা রেখে যেভাবে চলছে তা আরো এক সপ্তাহ বৃদ্ধি পেতে পারে। এরপরে আরেকটু ছাড় দিয়ে কিভাবে লকডাউন চালানো যায় চলছে সেই চিন্তা ।

গত এক সপ্তাহের লকডাউন পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে আগামী সোমবার উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেখানেই লকডাউনের সময়সীমা বৃদ্ধির বিষয়ে সুপারিশ চূড়ান্ত করা হবে। সেই সুপারিশ প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠালে প্রধানমন্ত্রী যে সিদ্ধান্ত দেন তা আনুষ্ঠানিকভাবে সবাইকে জানানো হবে বলে একটি সুত্র থেকে জানা গেছে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গত ২৯ মার্চ ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়েছিল সরকার। তারই ধারাবাহিকতায় ৫-১১ এপ্রিল অফিস-আদালত খোলা রেখে সীমিত মাত্রারা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু ওইসব পদক্ষেপ কার্যত কোনো ফল দেয়নি। ফলে ১৪ এপ্রিল সরকারের পক্ষ থেকে সর্বাত্বক লকডাউনের ঘোষণা আসে।

চলমান লকডাউনে প্রয়োজনীয় কাজে বাইরে যেতে পুলিশের কাছ থেকে নিতে হচ্ছে ‘মুভমেন্ট পাস’। করোনারোধে সরকারের এসব বিধিনিষেধ পালনে কিছু সুফল মিলা শুরু করেছে। তাই এসব কিছু বিবেচনায় চলমান লকডাউনকে অন্তত আরো এক সপ্তাহ অর্থাৎ ২৮-২৯ এপ্রিল পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে।

এ কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, মন্ত্রিপরিষদ সচিবের নেতৃত্বে লকডাউন নিয়ে হওয়া গত সপ্তাহের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে ১৪ দিনের কথা আলোচিত হয়েছে। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে এক সপ্তাহ করে লকডাউন দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তাই ২১ এপ্রিলের পর বর্তমান লকডাউন পরিস্থিতি আরো এক সপ্তাহ বাড়ছে এটা মোটামুটি ভাবে নিশ্চিত।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে সরকারকে অন্তত ২১ দিনের লকডাউন দিতে সুপারিশ করা হয়েছে। কিন্তু মানুষের জীবন-জীবিকাসহ সবদিক চিন্তা করে সরকারকে সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

প্রশাসনিক, কারিগরি বিশেষজ্ঞ কমিটিসহ একাধিক পক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এবারের করোনাভাইরাসের আক্রমণের যে শক্তি তা ভয়ঙ্কর। তাই এই যাত্রায় দেশের মানুষকে নিরাপদ রাখতে লম্বা সময়ের জন্য দূরপাল্লার বাস, বিনোদন কেন্দ্র, সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে।