এবসট্রাক্ট পেন্টিং : চৈতালী মুখার্জী(কনা)

জানো সেদিন একটা এবসট্রাক্ট পেন্টিং দেখছিলাম |
আমার ভালো লাগেনা |
মনে হয় হিজিবিজি কি সব !
রাগ কোরনা শুধু বলছি বুঝতে পারিনা |
কিন্তু সেদিন কি যেন হলো !
মাথাটা হঠাৎ বেশ সচল হয়ে মনে হলো ,
এরই মাঝে লুকিয়ে আছে জীবন,মরণের রহস্য |
বলতে ভুলে গেছি পেন্টিং টা টাংগানো ছিলো একটা হাসপাতালের করিডোরে |
যেখানে দিনরাত চলছে জীবন মৃত্যুর খেলা |
তাই বুঝি সেইখানে ঝোলানো পেন্টিংটা নাড়া দিলো আমার মনটাকে |
সচল করে তুললো স্নায়ুগুলো |
ওই যে সবুজ স্পষ্ট দাগগুলো ! মনে হলো ওরা জীবনের প্রতীক |
ভোরবেলা জেগে ওঠা মানুষের তরতাজা মন |
তারপর অন্ধকারে ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়ে ওঠা কমলা গাঢ় রঙ ,
মানব মনের আকাশে আশাভরা সূর্যের কিরণ |
কালো ,নীল একরাশ হিজিবিজি দাগ
বোধহয় দোলাচল হৃদয়ের গভীরে |
সত্য, মিথ্যা ,ন্যায় ,অন্যায় ,বিবেক ,মস্তিষ্কের লড়াই !
নীল ,কালো ,সাদা সবুজের এবড়ো ,খেবড়ো চড়াই ,উতরাই |
প্রতিদিনের ওঠাপড়া অন্তরের গভীরে |
তারই মাঝে কমলা সবুজের আশার স্রোত সাদা চিত্রপটে |
একটুকরো বিশ্বাস ,একফোঁটা ভরসা |
এক কোণে স্বপ্ন বোনে নীলচে ছোঁয়া ,
হয়তো বেঁচে আছে প্রেম কোথাও গভীরে হৃদয়ের কোণে |
যে মুহূর্তে বুঝে গেলাম ভালোবেসে ফেললাম পেন্টিংটাকে |
নিরাকার কে সাকার রূপে আবিষ্কার করা আমার হৃদয় ,
দুহাতে আঁকড়ে ধরে বলে ভালবাসি ,ভালবাসি তোমাকে এরুপেও |
ভালবাসি অনন্ত জীবনকে |