বিয়ের দাবিতে নবাগত মেয়রের অফিসে অবস্থান নিয়েছে এক নার্স।।

রাজশাহী প্রতিনিধিঃ বিয়ের দাবিতে রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র আল মামুন খানের অফিসে অবস্থান নিয়েছিলেন সিনিয়র  একজন নার্স।রবিবার (১১ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর মেয়রের অফিসে গিয়ে তিনি বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেন এবং ওই নার্স অন্তঃসত্ত্বা বলেও দাবি করেন। পরে পুঠিয়া থানা পুলিশ  সেখান থেকে তাকে থানায় নিয়ে যায়।

রাজশাহীর পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী জানান, এক তরুণী (নার্স) বিয়ের দাবিতে পুঠিয়া পৌর মেয়রের অফিসে অবস্থান নিয়েছিলেন। সেখান থেকে তাকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।তিনি বর্তমানে থানায় আছেন। মামলার প্রস্তুতি চলছে।মামলা হলে বিস্তারিত সব জানানো হবে বলে জানান তিনি।

পৌর মেয়রের অফিসে বিয়ের দাবিতে অবস্থান নেওয়া ওই নার্স জানান, প্রায় দুই বছর আগে বর্তমান মেয়র আল মামুন খানের সঙ্গে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে তার পরিচয় হয়।পরিচয়ের পর ধীরে ধীরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মন দেওয়া-নেওয়ার সময় তাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্কও হয়। এরপর তিনি অন্তঃসত্ত্বা হন।

এই কথা জানিয়ে আল মামুন খানকে বিয়ের জন্য বলা হয়। কিন্তু তিনি বিয়ে করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন।

ওই তরুণী আরো বলেন, শনিবার (১০ এপ্রিল) দুর্গাপুর থানায় মেয়র আল মামুন খানের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিতে গেলে পুলিশ অভিযোগ নেননি। তাই বাধ্য হয়ে আজকে মেয়রের কার্যালয়ে গিয়ে অবস্থান নিয়েছি।মেয়রের অফিস থেকে পুলিশে খবর দিলে সেখান থেকে তাকে থানায় নিয়ে আসে বলে জানান তরুণী।

তবে এ ব্যাপারে মোবাইলে কোনো কথা বলতে রাজি হননি পুঠিয়া পৌর মেয়র আল মামুন।