ঝিকরগাছা(যশোর)অফিস:
যশোরের ঝিকরগাছায় ক্ষুরারোগে গরুর মড়ক লাগার খবর পাওয়া গেছে। গত এক সপ্তাহে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে শতাধিক গরু মারা গেছে। এ রোগে আক্রান্ত হয়েছে আরো হাজার দশেক। ক্ষুরারোগের ভ্যাকসিন দেয়ার পরও এসব গরু আক্রান্ত হয়েছে। মড়কের ঘটনায় খামারিসহ গরু পালনকারীরা গভীর শঙ্কায় পড়েছেন।

সরেজমিনে কথা হয়, উপজেলার বল্লা গ্রামের রবিউল ইসলামের সাথে। তিনি জানান, ক্ষুরারোগে তার তিনটি গরু মারা গেছে। স্থানীয় পশু চিকিৎসকদের পরামর্শে নিয়েও কোন কাজ হয়নি। একই গ্রামের সফিউদ্দীন, মোমরেজ হোসেন, সিরাজুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম ও নওয়ালী গ্রামের ইউপি সদস্য মিজানুর রহমানের একটি করে গরু মারা গেছে।
নারাঙ্গালী গ্রামের ফারুক হোসেনের দুইটি, বিল্লাল হোসেন ও কাজী আফজাল হোসেনের একটি গরু মারা গেছে। এছাড়া উপজেলার প্রায় গ্রামে সব খামারির গরু খুরারোগে আক্রান্ত হয়েছে।

বল্লা গ্রামের খামারি ইমামুল হোসেন জানান, গত জানুয়ারি মাসে তার খামারের গরুর ক্ষুরারোগের ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছিল। তারপরও খামারের সব গরু আক্রান্ত হয়েছিল । একই কথা জানিয়েছেন, নারাঙ্গালী গ্রামের আবু হেনা। মাস চারেক আগে তার গরুর খুরারোগের ভ্যাকসিন দেয়া ছিল। এতে কাজ হয়নি, তার ছয়টি গরুই এ রোগে আক্রান্ত হয়।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. তপনেশ্বর রায় জানিয়েছেন, এটা ভাইরাসজনিত রোগ। সাধারণত ভাইরাসের নিদিষ্ট কোন চিকিৎসা হয় না। এটা ব্যাকটেরিয়া ইনফেকশন হওয়ার পর চিকিৎসা দেয়া হয়। তিনি উপজেলায় কত গরু আক্রান্ত ও মারা গেছে তার পরিসংখ্যান দিতে পারেননি। তবে ক্ষুরারোগে আক্রান্ত গরুর খামারিদের প্রাথমিক চিকিৎসা ও পরামর্শ জানিয়ে দেয়া হচ্ছে বলে জানান।

(সূত্রঃএম আর মাসুদ ঝিকরগাছা।)