আমি অনন্যা : চৈতালী মুখার্জী (কণা)

আমি অনন্যা
চৈতালী মুখার্জী (কণা)

আমি সয়ে যাই তাই অভ্যাস যাতনার ,
মনে দাগ কাটেনা বেদনা |
আমি নীরব তাই নীরবতা আমার গহনা |
বাতাসও তো বিদ্রোহ করে !
গর্জে ওঠে তো আকাশ !
পাহাড়ে ফাটল ধরে ,
সমুদ্র তুফান ওঠায় ।
আমার বুকে হালের ঘায়ে লক্ষ্য যাতনা ।
আমার রক্তের দাগ ! আমার রুদ্ধ কণ্ঠের বাক !
নিস্তব্ধতায় হারিয়ে ,
তোমাদের উল্লাস ।
পেট ভরে, তবু মন ভরেনা ।
আমি সয়ে যেতে পারি তাই ,
আমার সয়ে যাওয়া স্বাভাবিক ছন্দের দ্যোতনা ।
আমার হৃদয়ে কোলাহল শুধু ,
চাপা পড়ে যাওয়া কান্না ।
আমি পান করি অশ্রু তাই ,
হাজার আলোক বর্ষ হতে অশ্রুই শুধু পাওনাা ।
আমি কেঁপে উঠি কখনও –
যখন ভার হয় দুর্ভর ,
ক্ষণিক ক্ষলনে ,তবু মনে প্রাণে ,
ভালোবাসা ,মমতা ,স্নেহ ,করুনা ।
আমি নিষ্ঠূর অগ্নিদহনে দাবানল
দিতে পারিনা
দাবানলে আমি জ্বলে পুড়ে কালো
তবু আপন স্বরূপে , চেতন ,অবচেতনে
প্রেমের ধর্মে ,
আমি অনন্যা , আমি অপরাজিতা
তাই শত বলিদানে , রক্তক্ষরণে ,
লুকাই আমার কান্না ।