আত্মা : নাজমুন নাহার রিনু

আত্মা
নাজমুন নাহার রিনু

মৃত্যু আমার প্রতিটাক্ষণকে ছুঁয়ে ছুঁয়ে চলে য়ায়
মৃত্যুর ভয়াল থাবা আঁচড়িয়ে খামচিয়ে প্রতিনিয়ত আমাকে জানান দেয়, আমি আসছি।

আমার শরীরের প্রতিটা লোমকে শিহরিত করে
বরাংবার আমাকে জানান দেয়, আমি আসছি।

শিরা-ধমনী, হাড়, পাঁজরকে
‘মৃত্যু’ তার ধারালো দাঁত দিয়ে কামড়িয়ে
ব্যাথায় জর্জরিত করে
আমাকে উচ্চস্বরে জানান দেয়, আমি আসছি।

‘মৃত্যু’ কানে কানে ফিস ফিস করে বলে,
“খোল তোমার বুকের পাঁজর
আমি তোমার হৃৎপিন্ডের ভেতর হাত ঢুকিয়ে
ঢং ঢং করে বাজাবো ঐ সময়ের ঘন্টাকে”।

সময়ের ঘন্টা ছন্দিত হয়ে বলতে থাকে,
‘মৃত্যু’ তুমি কেবলই অপেক্ষারত প্রহরী!
আমি আমার নিজস্ব প্রক্রিয়াই
ঢং ঢং করে বেজে উঠবো।

তারপর, বুকের পাঁজর ছিড়ে খুঁড়ে
নশ্বর দেহ থেকে, মুক্তির লালিত আশায় ;
বেদনার্ত স্বাদ নিয়ে বেরিয়ে আসবে, বিদেহী আত্মা।