ছাত্রজীবন : মো. মজিবুলহক

ছাত্রজীবন
মো. মজিবুলহক

কতইনা মধুর ছিলো মোদের ছাত্রজীবন
পেশাজীবনের মধ্যদিয়ে শেষ স্কুলজীবন
ছিলো কত বন্ধু বান্ধব হতো আড্ডা গল্প
ভাবলে মনেহয় মধুর সময়টি ছিলো অল্প

ছাত্রজীবন কতই মধুর এখনই বুঝি ঢের
পেশাজীবনে যোগ দিয়ে পাচ্ছি তাই টের
অন্যমনস্কে বলতো বন্ধুরা এত ভালবাসা
বল দেবদাস কার প্রেমে তোর মনে নেশা

আমাদের না বলে ডুবেডুবে খাচ্ছিস জল
একাম করলি তুই কেমনে আমাদেরি বল
বন্ধু মানেইতো সব অগোছালো যত কথা
বন্ধু মানে এক মুহূর্ত না দেখলে মনে ব্যথা

বন্ধু মানে বলতেই হবে কার কাকে পছন্দ
বন্ধু মানে যা করি জানাতে হয় ভালোমন্দ
ছাত্রজীবনে বন্ধুদের সাথে হতো কত মান
বিদায় আড্ডা এবং গান নেই সে অভিমান

স্কুলজীবন কত মধুর/আনন্দ তখনি স্মরে
ছাত্রজীবন শেষ পেশাজীবনে প্রবেশ করে
ছাত্রজীবন ও পেশাজীবন অনেক ব্যবধান
জীবীকার তাগিদে হারালো সে আড্ডা গান

পেশাজীবনে ব্যস্ত বন্ধুরা আর প্রশ্ন করেনা
কার সাথে করছ প্রেম আমায় একটু বলনা
পরদিন বোর্ডে + দিয়ে নামটি লিখে দেওয়া
স্যার এসে দেখে পরে সকলের মার খাওয়া

প্রাক্তন ছাত্ররা সোনালী দিনগুলি মিস করে
তাইতো প্রত্যেক বছরে পুনর্মিলনে তা স্মরে
দিন গত হয় মাস যায় আসে বছর ঘুরে ক্ষণ
নির্দিষ্ঠ তারিখ করে তারা পুনর্মিলন অনুষ্ঠান