বিজয় দিবসে মন আজ ভারাক্রান্ত : জাহান আরা খাঁন কোহিনূর

বিজয় দিবসে মন আজ ভারাক্রান্ত
জাহান আরা খাঁন কোহিনূর

বিজয় দিবসে মন আজ ভারাক্রান্ত
এক সাগর রক্তের বিনিময়ে এসেছে স্বাধীনতা
কত শত আমার বোন হারিয়েছেন সম্ভ্রম
কত ভাই দিয়েছেন বুকের তাজা রক্ত
কত শিশু হারিয়েছে তার পিতা
কত মা হারিয়েছেন তাঁর সন্তান
কত বোন পরেছেন সাদাথান

তবে আজ কেনো ফুলগুলো ঝরে যায়
অসভ্য বর্বরতায়
নারীরা আজ পোষাকের দোষেবিদ্ধ
দুই বছরের শিশু, কি ছিলো ওদের পোষাকের দোষ?
ওদের কি ছিলো যৌবন? স্বাধীনতা কি এসেছিলো
এই জন্য?আমার ভাই জীবন বাজি রেখে দেশ করেছিলেন স্বাধীন এই দেখার জন্য।

মুখ থুবড়ে পড়ে আছে পৃথিবী
তবুও থামছেনা বর্বরতা অত্যাচার
আর কতদুর যাবো এই ভাবে?
আমাদের নারীদের পথ কবে হবে স্বাধীন
কবে হবে আমাদের কন্যা শিশু মুক্ত?
শাসনের বেড়াজালে শিশুকাল ওদের
হয়েছে আসামীর মত কারারুদ্ধ।

রাস্তাঘাট অফিস স্কুল কলেজ মন্দির মসজিদ
মাদ্রাসা কোথাও নারীরা নহে নিরাপদ
কখন যেন খামচে ধরবে নারী খেকো দুর্বৃত্ত
তছনছ হয়েছে সভ্যতার,বস্ত্র হরনের প্রতিযোগীতা নষ্টদের দখলে সভ্যতা।

যার জন্য পেয়েছিলাম স্বাধীনতা,
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের
ভাস্কর্য ওরা ভেঙে দিতে চায়।
মানবতার হিংস্রতায় রক্ত অশ্রু
মানুষ আজ বিপন্ন।
অপকর্মে অপরাধে ডুবে গেছে মানুষের মগজ
চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে হিংস্রতা
কি ভয়ানক ওদের দুরন্ত গতি,কে কার থেকে বড়।
মিথ্যাকারী চাটুকারিতায় ভরা
একেক জনের একেক রুপ,স্বার্থবেদীতে
সবাই দিচ্ছে পুজা।বিষধর কাল নাগ নাগিনী হয়
সমাজের সুচক।
মানুষের পাশে থাকেনা এরা,কার কি ক্ষতি হলো
কিছু আসে যায়না তাদের।
পথ দেখানো মানুষগুলো দিয়েছে চোখ বন্ধ করে
বিবেকের চরমতম অবক্ষয়,আলোকিত মানুষ নেই
তাদের মাঝে নেই কোনো ঐক্য।
জীনিষ পএের দাম বেড়েই চলেছে
যেনো লাগামহীম ঘোড়া,ইচ্ছে মত লাফিয়ে লাফিয়ে চলছে।দেখার নেই কেউ।
স্বার্থশুন্য নিবেদিত প্রাণের বড়ই অভাব।
এই জন্য আমার ভাই জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছিলেন?
জীবন দিয়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু
শেখ মুজিবুর রহমান।
হে বীর মুক্তি যোদ্ধা,জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, অশ্রু চোখে তোমাদের জানাই বিনম্র শত শ্রদ্ধা, শত কোটি সালাম।
তোমরাই তো করেছিলে আমাদের ইজ্জত রক্ষা।