খরিচাডাঙ্গা মাধ্যমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অ্যাসাইনমেন্ট ও সেশনচার্জের নামে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ

বিএম মিলন,স্টাফ রিপোর্টার: যশোর সদরের সতীঘাটায় খরিচাডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজগার আহম্মেদের বিরুদ্ধে ৮ম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে অবৈধভাবে অ্যাসাইনমেন্ট ও সেশনচার্জের নামে জন প্রতি ৬৫০ টাকা করে অর্থ আদায় করে বাণিজ্য করার বিস্তর অভিযোগ উঠেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সদরের রামনগর ইউনিয়নের সতীঘাটায় খরিচাডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে জন প্রতি অ্যাসাইনমেন্ট বাবদ ১৫০ টাকা ও সেশনচার্জ বাবদ ৫০০ টাকা মোট ৬৫০ টাকা করে আদায় করেছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক আজগার আহম্মেদ। সে সরকারি কোন নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে অবৈধপন্থায় এ অর্থ বাণিজ্য করেছেন বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছ।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্কুলের একাধিক ছাত্র-ছাত্রীরা জানায়,পাশেই কুয়াদা স্কুল এন্ড কলেজে অ্যাসাইনমেন্ট বাবদ জন প্রতি নিয়েছে ৮০ টাকা । আর আমাদের খরিচাডাঙ্গা স্কুলে জন প্রতি নিয়েছে অ্যাসাইনমেন্ট বাবদ ১৫০ টাকা ও সেশনচার্জ বাবদ ৫০০ টাকা মোট ৬৫০ টাকা। অভিভাবকরা জানান,আমাদের জানামতে এলাকায় কোন স্কুলে এ বছর সেশনচার্জ নিবে না,কারণ স্কুলতো অনেক দিন বন্ধ রয়েছে। তাহলে প্রধান শিক্ষক সরকারি নির্দেশ অমান্য করে অবৈধভাবে এ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। আমরা এই দুর্নীতিবাজ প্রধান শিক্ষকের বিচার চাই।
এ বিষয়ে খরিচাডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজগার আহম্মেদের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সকারি নির্দেশ আছে অ্যাসাইনমেন্ট বাবদ কোন টাকা নেয়া যাবে না ঠিক অাছে কিন্তু আমি অ্যাসাইনমেন্ট এর সাথে এ ফোর সাইজের কাগজ ও উপরে কভার দিচ্ছি এ টাকা আমি পাবো কোথায় ? তাই অ্যাসাইনমেন্ট বাবদ জন প্রতি ১৫০ টাকা ও চলতি বছরের সেশনচার্জ বাবদ ৫০০ টাকা, মোট ৬৫০ টাকা করে নিয়েছি।
মুঠোফোনে জানতে চাইলে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শেখ আলাউদ্দীন মুকুল বলেন, আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানি না। তবে খোঁজ-খোবর নিয়ে দেখছি।
এ বিষয়ে অভিভাবকসহ এলাকার সচেতনমহল দ্রুত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।