মা : জাহান আরা খাঁন,কোহিনুর 

মাকে নিয়ে জাহান আরা খাঁন,কোহিনুরের খোলা ডায়েরী
টাইম ভিশন 24

মা : জাহান আরা খাঁন,কোহিনুর 

তুমি শাশ্বত,তুমি সুন্দর, যার নেই কোনো সংজ্ঞা। মা মানে, দুঃখ কষ্ট সঙ্কটে যে মানুষটি স্নেহের পরশ বিছিয়ে দেন উনি মা, মা মানে তাঁর সন্তানের জন্য সুখ শান্তি স্বাচ্ছন্দ ত্যাগ করেছেন হাসি মুখে,মায়ের ডাক,মায়ের হাত,মায়ের আদর,,মায়ের আঁচল আমি আর কোথাও পাইনা খুঁজে। মা মানে, যখন কথা ফুটেনি আমার মুখে,কান্নায় ছিলো আমার সব ভাষা,তখন তুমি তোমার মমতায় সব বুঝে যেতে,কোথায় আমার যন্ত্রনা, কোথায় আমার ব্যাথা কখন লাগে ক্ষুধা। মা গো মা, তুমি কেনো চলে গেলে?কত দিন দেখিনা তোমায়,তোমার কথা মনে হলে চোখ দুটি যায় জলে ভরে।তোমাকে না পেয়ে,আমার বুকের ভিতরটা যন্ত্রনায় কুঁকড়ে যায়,বড় ব্যাথা করে বুকটা, শুন্য হয়ে যায় হৃদয়, তোমার হাসি মুখখানা দেখে, আমি সবকষ্ট গুলো যেতাম ভুলে। মা গো মা, তোমায় বড় দেখতে ইচ্ছা হয়,তোমার বুকে মাথা রেখে জীবনের সুখ,ঘাত প্রতিঘাত ব্যাথা বেদনা জড়িয়ে ধরে বলতে ইচ্ছা করে,যে কথা তুমি তোমার মনের সিন্ধুকের কোঠরে জমা রেখেছো, যুগের পর যুগ। মা গো মা, আজ সকল ব্যাথার পাহাড় বুকে জমতে জমতে,ব্যাথাতুর হৃদয় হয়েছে ক্ষত। শুধু চোখের জলের হয়েছে নোনা নদী। মা গো মা, আমার বুকে মাথা রেখে কান পেতে শুনো সেখানে শুধু হাহাকার,শুন্যতা,কষ্টের লাল নীল পাহাড় মা তুমি একবার আমাকে বুকে টেনে নিবে?এই বিশাল পৃথিবীতে তুমি বিনে সব ফাঁকা, একবার আমার মাথায় হাত বুলিয়ে দিবে?আমার মাথায়একবার হাত দিয়ে দোয়া করে দিবে?তোমার হাতের স্পর্শে আমার বুকের ব্যাথাটা যদি একটু কমে যেতো। মা গো মা, তোমার মত করে কেউ আগলে রাখেনা। মা তোমার গাঁয়ের গন্ধ সে যে আমার অনেক প্রিয়, মাগো, তোমাকে জড়িয়ে ধরে বলতে ইচ্ছা করে, যা কখনও বলা হয়নি, মা গো মা, তোমায় আমি অনেক ভালোবাসি, তুমি আমার পৃথিবী, তুমি আমার সকল সুখ,তুমি আমার সকল বেদনার ঔষধ,তোমায় আমি অনেক ভালোবাসি ভালোবাসি ভালোবাসি,কথাটি শুনলে, না জানি তুমি কত খুশী হতে। মা গো মা, এই বিশাল পৃথিবী নামের সমুদ্রে আমি বড্ড একা,এই জগতের মুখোশধারী লোকের চেনা বড় শক্ত। যারা সুযোগ পেলে আমার বুকে বসিয়ে দিবে খঞ্জর। মা গো মা, তুমি একবার এসে চিনিয়ে দিবে মুখোশধারীকে। মা গো মা, তোমার কাছে আমার যত আহ্লাদী, যত আবদার,চাওয়া পাওয়া, সেই যখন মুখে কথা ফুটেছিলো। মা গো মা, যেদিন তোমাকে ছেড়ে শশুর বাড়ীতে চলে গিয়েছিলাম, মনে মনে আমি বুঝে গিয়েছিলাম,পৃথিবীতে মায়ের মত আপন কেউ নাই। মা ছাড়া বায়না নেই, মা ছাড়া প্রাণ ভরে হাসতে নেই। আমার কথার ঝুড়ি আর কেউ সিন্ধুকের কোঠরে জমা রাখবেনা। মা গো মা, যেদিন তুমি চলে গিয়েছিলে সেদিন তোমাকে আমার ভীষন ছুঁয়ে দেখতে ইচ্ছা করেছিলো, ওরা আমার হাত দুটো এমন শক্ত করে ধরেছিলো আমার মনে হয়েছিলো আমার হাত দুটো ওরা ভেঙে ফেলবে।আমি জোর করে হাত ছাড়িয়ে তোমার দিকে ঝুঁকে পড়েছিলাম। তোমার শরীরে জড়ানো সাদা কাপড়টা সরিয়ে তোমাকে ছুঁতে চেয়েছি, কিন্তু দেখলাম সাদা কাপড় দিয়ে শক্ত করে তোমাকে ওরা পেঁচিয়ে দিয়েছে, আমি চেষ্টা করে তোমাকে শেষ বারের মত ছুঁতে পারিনি।আমার ইচ্ছা পুরন হয়নি। চোখের জলে শুধু ভাবি, এ কেমন নিয়ম, দশ মাস দশদিন যে মায়ের জঠরে স্থান পেয়েছি, পরান পাখি উড়ে যাওয়ার সাথে সাথে আর তাঁকে ছুঁতে পারবোনা। মা গো মা, সবাই বলে তুমি নাকি ঐ দুর আকাশের তাঁরা নক্ষএের মাঝে লুকিয়ে আছো, ও আকাশ তুমি আমার মাকে খুঁজে দিবে ?আমার মায়ের কাছে নিয়ে যাবে? আমি তোমার বুকে জমে থাকা কালো মেঘ গুলোকে সরিয়ে দিবো,এক সমুদ্র রং নিয়ে তোমার বুকে জড়িয়ে থাকবো। আমি জানি,কেউ আমার মাকে খুঁজে দিবেনা,মাকে আমি কোনো দিন আর পাবোনা,মা আর কোনো দিন ফিরে আসবেনা, তাঁর পরও কষ্ট হয়, হাহাকার হদয়,বড় শুন্য লাগে মা বিহনে। বিধাতার কাছে করোজরে প্রার্থনা করি,আমার মাকে তুমি বেহেস্ত নসীব করো,আমার মাকে ভালো রেখো। হে রাহমানের রাহীম, আমার মায়ের জন্য সকল দোয়া তুমি কবুল করে নিও।