যশোর অফিস: যশোরে স্ত্রীর পরকীয়ার কারণেই খুন হন স্কেভেটর শ্রমিক ইস্রাফিল হোসেন মান্নাত। তার ভগ্নিপতি শাহ আলমসহ ৭জন ওই হত্যার সাথে জড়িত। যার মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে ৪জনকে। একইসাথে উদ্ধার করা হয়েছে হত্যার কাজে ব্যবহৃত লোহার পাইপ, ইট ও মোটরসাইকেল।

আজ দুপুরে পুলিশ সুপার নিজ কার্যালয়ের আয়োজিত এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।

আটককৃতরা হলো যশোর সদর উপজেলার মাহিদিয়া গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে আল আমিন, শহরের পুরাতন কসবা কাঠালতলা নান্টুর বাগান এলাকার আবু তাহেরের ছেলে রিফাত, সুজলপুরের আব্দুর রশিদের ছেলে রায়হান শেখ ও শফিকুল ইসলামের ছেলে নয়ন হোসেন।

হত্যাকান্ডের বিষয়ে পুলিশ সুপার মোহাম্মাদ আশরাফ হোসেন বলেন, চলতি ২৩ অক্টোবর রাতে নিজের বাইসাইকেল নিয়ে বের হয়েছিলেন মাটিকাটা স্কেভেটরের হেলপার মান্নাত। রাতে আর বাড়িতে ফেরেননি তিনি। পরের দিন সকালে কারবালা এলাকার রাস্তার পাশ থেকে তার মাথা থেতলানো মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের মা আনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে মামলা করেন। এরপর ডিবি পুলিশ তদন্ত শুরু করে।

ব্রিফিং এ পুলিশ সুপার আরো জানান, মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে গত রোববার যশোর সদর ও অভয়নগর উপজেলায় অভিযান চালিয়ে হত্যায় জড়িত আল আমিন, রায়হান শেখ, রিফাত ও নয়ন হোসেন নামে চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের স্বীকারোক্তি মতে হত্যাকাজে ব্যবহৃত লোহার পাইপ, ইট ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।
আটককৃতরা জানিয়েছে, নিহত মান্নাতের ভগ্নিপতি শাহ আলমের সাথে পরকীয় সম্পর্ক ছিল তার স্ত্রী সুমির। এ নিয়ে গোলযোগের জের ধরে শাহ আলম হত্যার পরিকল্পনা করে। হত্যায় জড়িত শাহ আলমসহ অপর তিনজনকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার।

প্রেস ব্রিফিং এ উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: গোলাম রব্বানী, মো: তৌহিদুল ইসলাম, জামাল আল নাসের, অপু সরোয়ার, সহকারী পুলিশ সুপার মনিরামপুর সার্কেলের শোয়েব আহম্মেদ খাঁন, নাভারন সার্কেলের জুয়েল ইমরান, যশোর কোতয়ালী মডেল থানার ওসি মনিরুজ্জামান ও ডিবির ইন্সপেক্টর মাসুম কাজী ।