শব্দ বাগান : শামছুন্নাহার রুবাইয়া

time vision 24

শব্দ বাগান
শামছুন্নাহার রুবাইয়া

কারসাজি করলাম কত,দেয়াল টপকে শব্দ বাগান
থেকে কিছু শব্দ ফুল চুরি করতে,শব্দ ফুলের মালা
গাঁথবো যুগযুগ ধরে।
মালী আমাকে ধরে কি দড়কচাটাই না করলে!
বললে,এতগুলো ফুল কাদের জন্য জানিস?
বললাম না,
কার জন্যে,
সেই সব মা বোনের জন্য যারা, শকুনের ভয়াল থাবায় থমকে গেছে,
নিজের সর্বস্ব ক্ষয়েছে,তাদের কষ্টের কথা আমি আমার মনের মধ্যে লুকিয়ে,এসব শব্দের চাষ করি অহরহ।
আমি দৃষ্টিনন্দন করে রাখবো সেই পূর্ণিমাকে যার গর্ভধারিনী মা আকুতি করে বলেছিলো,, তোমরা একজন একজন করে এসো, নয় আমার কচি মেয়েটা মরে যাবে,,।
মায়ের এমন আহাজারিতে রক্ষা পায়নি পূর্ণিমার কোমল দেহটা,ছোট মেয়েটার অজস্র কান্নার শব্দ কুকুরের পাষাণ হৃদয় গলেনি।
বাবা মার সামনে এমন দুর্বিসহ ঘটনা নাড়া দেয় হৃদয় পটে।
এই সব ফুল চাষ করি সেই সব নুসরাত যাকে পুড়িয়ে মারা হয়েছিল,হায়েনার লোভে স্বীকার হয়নি বলে।
তার সমাধির পরে দেওয়ার জন্য।
সেই নববধূকে যাকে এম সি কলেজের ছাত্রাবাসে স্বামীর সামনে ধর্ষণ করে,অজ্ঞান করে,তাকে সুবাসিত করার জন্য।
আমার তখন চোখদিয়ে জল ঝরে।
বললাম স্যালুট শব্দ বাগানের মালি,তোমার পায়ে আমি অশ্রু দিয়ে দেই শ্রদ্ধাঞ্জালী।
তুমিই প্রকৃত মানুষ,আমার চাইনা তুমি নিজ হাতে শব্দ ফুলের মালা গাঁথো,