মনের অন্ধকার : আতিয়ার রহমান

মনের অন্ধকার
আতিয়ার রহমান

অন্ধকার সে কি সত্যিকার অন্ধকার,
নাকি কারো অনুপস্থিতির শুদ্ধ প্রহর!
রাত্রির ঘুটঘুটে অন্ধকার, আলোহীন,
ঘুর্ণায়মান পৃথিবী পিষ্টের অবস্হান।
দিবসের দীপ্ত আলোয়, মুক্ত ছড়ানো,
এদিক সেদিক ইচ্ছামত ঘুরে বেড়ান।
কষ্ট করে,কেউ করে জীবিকার সন্ধান,
কেউবা অনৈতিক কর্মকান্ডে বহমান।
কালো রাতের আধারে চুরি করে যারা,
অভাবী, নিরক্ষর এবং নির্বোধ তারা।
তবে দিনের আলোয় চুরি করে যারা,
শিক্ষিত,খচ্চর,সমাজ বিরোধী তারা।
সুদ,ঘুষ,দুর্নীতি ও ফাঁকি সব-ই চুরি,
এমন লোক দেশে আছে ভুরি ভুরি।
দিনে চুরি করা সাধ্যইবা আছে কার,
জ্ঞান মনের অন্ধকারে বসবাস তার।
কলুষিত মন আর অন্ধকার সমান,
জ্ঞান পাপি রাখতে চায় দেশের মান!
অফিস আদালত সাধারণে বোঝেনা,
কাজের ফাঁকফোকর তারা খোজে না।
ভ্যান চালক,খেটে খাওয়া মানুষ সরল,
নাই ফাঁকি, নাই তাদের মনে গন্ডগোল।
টাকা পয়সা,দালানকোঠার নাই অভাব,
তবু কেন অনেকের মাঝে ঘৃণ্য স্বভাব?
আবেগে,স্বভাবে, খায়েশে জড়ালে মন,
সমাজ জীবনে কু-কর্ম ছড়াতে কতক্ষণ!
সাধ ও সাধ্যের বাইরে যেয়ে কিছু করা,
দুষ্কর্মে ও দুর্ভাগ্যে মনের অজান্তেই ধরা।
প্রকৃতির অন্ধকার সময় হ’লে চলে যায়,
কুলাঙ্গারের অন্ধকার চিরদিন রয়ে যায়।
জাগবে সব মানুষ,দেখবে ওদের ভবিষ্যৎ,
তারা দেখবে মাটি ও আগুণের উৎপাত।
ঘৃণাভরে দেখে সকলে সম্মান করে না,
ছাড়লেই জগত হাসে,মানুষ কাঁদে না।
কার জন্য যে করে পাপ হয়ে অভিসার,
রাতের চেয়ে কলুষিত মনের অন্ধকার।
সু-শিক্ষার পরিবেশ সৃ্ষ্টি হ’লে সব ঘরে,
কলুষিত মন সকলের নিশ্চয় যাবে মরে।
হটাও দুর্নীতি, ছাড়াও সুদ, ঘুষ ও ধর্ষণ,
হাসবে পৃথিবী, হাসবে দেশ প্রকৃত দর্শন।