ধর্ষণ : জাহান আরা খাঁন (কোহিনূর)

ধর্ষণ
জাহান আরা খাঁন (কোহিনূর)

নারীর বড় সম্পদ তাঁর সম্ভ্রম,
নরপিশাচেরা প্রতিনিয়ত নারীর
সম্ভ্রম করিতেছে লুট
তাতে বাদ যায়না শিশুটিও।

নিথর ধর্ষিতার রক্তাক্ত দেহ কোলে নিয়ে
অসহায় মায়ের গগন ফাটানো চিৎকার
কাঁদে আকাশ বাতাস, কাঁদে বনের পশু পাখি,
গভীর রাতে কুকুররাও কাঁদে,
শুধু কাঁদেনা বিচারকের মন।

ওরা হয়ে গিয়েছে বধির,
ওরা শোনেনা মায়ের চিৎকার
ওরা দেখেনা মায়ের ধর্ষন
ওরা হয়ে গিয়েছে অন্ধ
ঘুমিয়ে গিয়েছে ওদের মনুষ্যত্ববোধ।

পৃথিবী রেগে গিয়ে মহামারী
দিয়েছে ছড়িয়ে,আজ অসুস্থ পৃথিবী
নরপিশাচের ভয় নাহি প্রানে
মা বোনের সম্ভ্রম নিয়ে প্রতিনিয়ত
করিতেছে পৈশাচিক নৃত্য
চলিতেছে লম্পট জোচ্চোর ঘাতকের
বিভৎস তান্ডব।

আর কত রক্ত গঙ্গা বহিবে
চলিবে তান্ডব?

মহানুভবতা প্রীতি ঔদার্য বিবেক বিচার
বিচারকেরা করে দিয়েছে বিদায়
বিচারহীনতায় নারীরা আজ ধর্ষিতা
নড়বড়ে খুটি ধরে নারীরা আছে দাঁড়িয়ে

ধর্ষিতারা ঘৃনা ভরে প্রতিনিয়ত
দিচ্ছে তোমায় অভিশাপ
হে বিচারক,হে রক্ষক তোমার ঘরেও
একদিন থাকিবে ধর্ষিতা
মনে রেখো,কর্মফল মানুষের
পিছু নাহি ছাড়ে
বিধাতার বিচার তুমি পাবে।

হে বিচারক,
খুলে দাও তোমার আঁখি
বিজয়ের নতুন নিশান উড়িয়ে
বিজয় দামামা বাজিয়ে
নরপিশাচের নৃত্য করে দাও বন্ধ