ছলনাময়ী নারী : কাঞ্চন চক্রবর্তী

(২৭)
ছলনাময়ী নারী
কাঞ্চন চক্রবর্তী

ঠিক আছে চাচা তবে একটা কথা, আমি যতটুকু জানি দশবিঘা ও দশ কাঠা জমির মূল্য বাজার দর হিসাবে প্রায় সত্তর লক্ষ হবে,তবে আমি আপনাকে পঞ্চাশ লক্ষেই দিব যদি”(মহাজন উৎফুল্লতার সাথে) “যদি কি বাবা?” “যদি জমি রেজেষ্টির আগে কেহ জানতে পারে তাহলে জমির মূল্য সত্তর লক্ষের কম হবে না কথাটা মনে রাখতে হবে আপনাকে” “ঠিক আছে বাবা কেউ জানতে পারবেনা” “এমনকি কাক পক্ষিতেও জানতে পারবে না” “ঠিক আছে চাচা তাহলে ঐ কথাই রইলো,আজ আসি চাচা আসসালামো ওয়ালাইকুম” “ওয়ালাইকুম আসসালাম” রমিজ চলে গেল মহাজন তার যাবার পথে কিছুক্ষণ চেয়ে রইলো, তারপর অট্ট হাসিতে ফেটে পড়লো,(স্বগত) রমিজের দশবিঘা দশ কাঠা জমির মূল্য এক কোটিটাকার বেশি যদি ওটা অর্রধেক দামে কিনতে পারি তাহলে রাতারাতি আমি মালামাল হয়ে যাবো, হা হা হা। রমিজ বাড়িতে গিয়ে বিছানায় শরীরটা এলিয়ে দিল, ঠিক তখনই তার মাথায় চিন্তার পাহাড় এসে ভর করলো, যেমন একটা মেয়েকে সে জীবনে কোন দিনই দেখেনি মাত্র ছয় মাস ফোনে কথাবার্তা হল এক পলক দেখা, তাতেই তাকে দেখে ভাল লেগে গেল,ভাল লাগতেই পারে তার জন্য সে তাকে নারীত্ব দিয়ে দিল,মনে করলাম মেয়েটি নষ্ট কিন্তু সে তার মায়ের চিকিৎসার জন্য যে টাকাটা ধার নিল, আবার সময় পূর্ণ হওয়ার আগেই সুদ সহ টাকাটা ফেরৎ দিয়ে দিল, তাতে মনে হয়না সে চিটার বা বাটপার, তবে তার
চলবে- – – –