হাসপাতালে জন্ম নেয়া পুত্র শিশুর দায়ীত্ব নিলেন মানবতার ফেরিওয়ালা কামরুজ্জামান জসিম

ফিরোজ শাহ্, মোংলা প্রতিনিধি: মোংলা পোর্ট পৌরসভার নারকেলতলা আবাসনে স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েদের নিয়ে বসবাস করতেন কৌইন বিশ্বাস। কৌইন বিশ্বাসের স্বামী পরিত্যক্তা মেয়েকে এলাকার আয়নাল নামের যুবক তার অসহাত্বের সুযোগ নিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তাকে জোর করে ধর্ষন ও অবৈধ মেলামেশায় অন্তসত্বা হয়ে পরে ওই যুবতী। এক পর্যায় এ নিয়ে মোংলা থানায় মামলা হলে অভিযুক্ত যুবক আয়নালকে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ। আজ মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রে একটি পুত্র সন্তান জন্ম দেয় ওই যুবতী। মোংলা থানা ওস্থানীয় সুত্র জানা যায়, অভাবের সংসার তাদের, বাবা-মাও বৃদ্ধ, দীর্ঘদিন যাবত অন্যের বাড়ীতে ঝিয়ের কাজ ও পানি বহন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল অসহায় কৌইন বিশ্বাসের মেয়ে ওই যুবতী (২২)। একই এলাকার স্থানীয় জনৈক কোরবান মল্লিকের ছেলে আয়নাল মল্লিকের কুনজরে পরে মেয়েটি। পরে তাকে বিয়ের করার আশ্বাস দিয়ে ধর্ষন করে এবং এক পর্যায় তার সাথে অবৈধ শারীরীক সম্পর্ক গড়ে তোলায় অন্তঃসত্ত্ব হয়ে পরে ওই যুবতী। দিনের পর দিন এ অবৈধ মেলামেশার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় অসহায় হয়ে পরে ওই পরিবারটি। এক পর্যায় অনাগত সন্তানের পিতৃী পরিচয়ের দাবী তুললে বিষয়টি স্থানীয় সমাজপতিরা নারীকে সমাজে নষ্টা বলে আখ্যা দিলে অসহায় যুবতী মোংলা থানার সহায়তায় মামলা করে। এদিকে জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় অভিযুক্ত আয়নাল মল্লিককে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায় মোংলা থানা পুলিশ। মামলা বর্তামানে চলমান রয়েছে। অভাব অনাটর ও দুঃচিন্তায় দিন কাটচিল যুবতীর। মঙ্গলবার (৮সেপ্টেম্বর) রাতে অসুস্থ অবস্থায় মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে­ক্সে ভর্তি হন অন্তসত্তা ওই যুবতী। এমন দূর্দিনে কেউ তার পাশে নেই। মা-বাবা আর্থিকভাবে খুবই অসহায়। মেয়ের চিকিৎসার ব্যায়ভার বহন করার সামর্থ নেই তাদের। স্থানীয়দের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারেন পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক শেখ কামর“জ্জামান জসিম। ছুটে যান অসহায় পরিবারটির কাছে। তিনি অসুস্থ ওই যুবতীর খোঁজ খবর নিয়ে সেখানকার ডাক্তাদের সাথে কথা বলেন তিনি। তার চিকিৎসার সম্পূর্ণ দায়িত্ব নেন মানবতার ফেরিওয়ালা কামর“জ্জামান জসিম। বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) বিকালে কোল জুড়ে আসে ফুটফুটে এক পুত্র সন্তান। হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় নবজাতক সন্তানকে কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন কামর“জ্জামান জসিম। ডাক্তার ও সন্তান প্রসাব আর হাসপাতালের সব খরচ বহন করেছেন তিনি।  এব্যাপারে কামর“জ্জামান জসিম বলেন, অসহায় পরিবারটির পাশে কেউ নেই। তারা অনেক গরিব, হাসপাতালের খরচ ও ওষুধ কেনার জন্য কোন টাকা পয়সাও নাই এ পরিবারটির কাছে। তাই আদালতের এ মামলা নিশ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত আজ থেকে এই নবজাতক সন্তানের দায়িত্ব আমি নিলাম। তিনি নবজাতকের জন্য সকলের নিকট দোয়া চেয়েছেন।  মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী জানায়, নারকেলতলা এলাকায় ধর্ষন ও অনৈতিক মেলামেশায় থানায় একটি মামলায় আয়নাল নামের একজন জেল হাজতে রয়েছে। অসহায় ওই মেয়েটির আজ মোংলা হাসপাতালে একটি সন্তান জন্ম হয়েছে। খবর শুনে সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে এবং তার খোজ খবর নেয়া হচ্ছে।