ছলোনাময়ী নারী :কাঞ্চন চক্রবর্তী

পর্ব (১৬)
ছলোনাময়ী নারী
কাঞ্চন চক্রবর্তী

হাটতে বেরিয়েছিলাম” “ও তাই বুঝি? তা হাটা কি হলো?” ভাবি একটু রসিকতা করে বললো, “হল তুমি নাস্তা দাও তো,আমার কলেজের সময় হয়ে গেল” “দিচ্ছি তুমি হাত মুখ ধুয়ে এসো” ভাবি নাস্তা নিয়ে পড়ার টেবিলে রেখে গেল,রমিজ গো-গ্রাসে একটা রুটি খেয়ে বেরিয়ে পড়লো কলেজের উদ্দ্যেশে, মনটা তার কাটা কবুতরের মত ছটফট করছে কখন জানি সে রূবির কাছে পৌছাতে পারবে,তার যেন আর তর সইছেনা, দুপুর দুইটার সময় কলেজের ক্লাস শেষ করে হোটেলে সামান্য কিছু নাস্তা করে বাসে চেপে বসলো যশোরের উদ্দ্যেশে , বিকাল পাঁচটার সময় রেল রোডের ৭৬ নং রূবির বাড়িতে প্রবেশ করলো ঠিক আগের মত অর্ধনগ্ন পোশাক পরে অপেক্ষায় আছে রূবি। রূবি রমিজকে দেখা মাত্র বুকের সাথে জড়িয়ে লেপ্টে ধরলো একের পর এক কিচ করতে লাগলো, মনে হয় বহু বছর পর তার নিজের স্বামীকে কাছে পেয়েছে, রূবি রমিজের বুক থেকে উঠে জিজ্ঞাসা করলো “টাকা কোথায়?” “ঠিক আছে বাবা টাকা এনেছি সেগুলো বের করতেতো দাও” “ওকে বাবা ভুল হয়ে গেছে কান ধরছি” রমিজ পকেট থেকে টাকার বান্ডিলটা বের করে রূবির হাতে দিল,হঠাৎ তার ফোনটা বেজে উঠলো রমিজ ফোনটা রিসিভ করতেই অপর প্রান্ত থেকে ভেসে এলো ভাবির কণ্ঠস্বর “কি রমিজ ভাই তুমি এখন কোথায়?” “ভাবি যশোরে আমার এক বন্ধুর জন্মদিনের পার্টিতে এসেছি তোমাকে বলা হয়নি আজ রাতে ওদের বাড়িতেই থাকবো,তুমি একটু ভাইজানকে বুঝিয়ে বলো প্লিজ” “ঠিক আছে বুঝিয়ে বলবো, ফোনটা কেটে

চলবে- – – –