একটি কন্যাভ্রূণের আর্তি : শর্মিষ্ঠা ভৌমিক

একটি কন্যাভ্রূণের আর্তি
শর্মিষ্ঠা ভৌমিক

মাতৃজঠরে কাঁদে তোর কন্যাভ্রূণ —

আলোতে তার বড় ভয় …

ভয় তার পৃথিবীকে …

কাঁটাগাছের বীজ দাঁড়িয়ে সারিবদ্ধ হয়ে …

উপড়ে দেবে ,ক্ষতবিক্ষত করবে নবজাতিকার নাড়ী….

জন্মেই নৃশংসতার হাতে হতে হবে বলি ।।

মাতৃজঠর‌ই তার জগত …অস্তিত্ব … সুখনীড় ।।

জঠরে আছে লালরঙা আবীর …

আছে মায়ের পরশ,মায়ের ওম …

পৃথিবীর রক্ত বড় কালো,বড় অপবিত্র …

কত শত কন্যার বলিতে নিদারুণ জিঘাংসায় ভরা এক নরককুন্ড।।

চাই না রে মা জনম নিতে তোর আদরের ধরাতলে ..

সমতল দেখ কাঁপছে থরথর,

পর্বতের রুদ্ররোষ ….মরুপ্রান্তর সদাই বিধ্বস্ত বালুকা ঝড়ে !

জন্মালে মৃত্যু হবেই …জীবনের জলন্ত অনলে ..

মাগো ,আমি থাকতে চাই তোরই জঠরে

প্রাণ যদি যাবে যাক এখনই – তোরই জঠরে…

বলবে না কেউ বন্ধ্যা তোকে …

তোর কাছে আমি এসেছিলাম যে !

তোর জঠরে কদিন তো গেলাম হেসে খেলে …

মোহপাশে করিস না নিজেকে আবদ্ধ…

আমিও চাইনা হটকারী সিদ্ধান্ত নিতে …

দে বিদায় তোর আদরের কন্যাভ্রূণরে …

ধিক্কার ! ধিক্কার ! ধিক্কার জগতেরে …

লিঙ্গভেদের মায়াজালে হয়ে আকৃষ্ট …

করে চলেছিস শক্তির অবমাননা …

আসবে খরা,দুর্ভিক্ষ,ভূকম্প ….

নিমেষে হবি সব ধুলাগড়ের রাজা …

একদিন কন্যাভ্রূণকে করবে সবাই কুর্নিশ …

তবে কবে আসবে সে দিন .. বড় তা অনিশ্চিত !!!