ছলোনাময়ী নারী : কাঞ্চন চক্রবর্তী

পর্ব (১১)
ছলোনাময়ী নারী
কাঞ্চন চক্রবর্তী

বিশেষ একটা প্রয়োজন আছে,তার জন্য পাঁচলক্ষ টাকা চাই,দেখ বাবা রমিজ, “আমি টাকার ব্যবসা করি তবে টাকা পয়সা খুব একটা ভাল জিনিস না, টাকার জন্য ভাই ভাইকে খুন পর্যন্ত করতে পারে, আমি বিনা দলিলে কোন প্রকার টাকা পয়সার লেনদেন করিনা তার জন্য প্রয়োজন একটা কাগজ পত্রের, আর তোমাদের দুই ভাইয়ের মোট জমি আছে বাড়ি সহ একুশ বিঘা,তার অর্ধেক সাড় দশ বিঘা বর্তমান বাজার মূল্য এককোটির বেশি হবে,টাকাটা তোমার কি প্রয়োজন তা আমার জানার দরকার নেই,তবে আমার কাছ থেকে টাকা পেতে হলে আমার তিনটি শর্ত আছে তার যে কোনটি পূরণ করলে আমি তোমাকে টাকা দিতে পারবো”, “বলুন চাচা কি আপনার শর্ত?” “এক নাম্বার,আমার সারা জীবনের আয়ে গড়া একশত পঞ্চাশ বিঘা জমি কিনেছি, যদি তুমি আমার মেয়েকে বিয়ে কর,তাহলে টাকাও তোমাকে ফেরৎ দিতে হবে না, আমার জামাই হয়ে বহাল তবিয়তে দিন কাটাতে পারবে, আর তোমার লেখাপড়ারর সব খরচাপাতি আমি দেব, দুই নাম্বার প্রতি একলক্ষ টাকার সুদ হিসাবে মাসে দশ হাজার টাকা দিতে হবে, তিন নাম্বার, তোমার জমি বাড়িটা আমার কাছে নগত টাকায় বিক্রি করে দেওয়া, আমি তোমাকে ঠকাবো না, পুরা পঞ্চান্ন লাখ টাকাই দেব”, “ঠিক আছে চাচা আমি ভেবেচিন্তে কাল আপনাকে জানাবো,” “ঠিক আছে তবে ঐ কথাই রইল কাল এসো”, রমিজ সালাম দিয়ে বিদায় নিয়ে সোজা বাড়িতে এসে বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে পড়লো, কি করবে সেনিজে বুঝতে পারছে না,যদি সুদ করে টাকা ধার নেই তাহলে প্রতি মাসে

চলবে- – –