ছলোনাময়ী নারী : কাঞ্চন চক্রবর্তী

পর্ব (১০)
ছলোনাময়ী নারী
কাঞ্চন চক্রবর্তী

রমিজ দ্রুত বাড়িতে এসে চিন্তায় মগ্ন হয়ে পড়লো,একদিকে গতকাল রাতে যা ঘটে গেল তা সে কোনদিন ভুলতে পারবে না, জীবনের প্রথম অভিজ্ঞতা,এমন করে কেউ তাকে কাছে জড়ায়নি কি একটা রোমাঞ্চ সারাক্ষণ তাকে যেন তাড়াকরে যাচ্ছে,ক্ষনে-ক্ষনে রাতের সমস্ত দৃশ্য গুলি মনের ভিতরে নাড়াতাড়া দিয়ে যাচ্ছে, আবার কখন এমন মূহুর্ত আসবে তার প্রতীক্ষার প্রহর যেন কাটতে চায় না, কিন্তু তার সনে দেখা করতে হলে তো পাঁচ লক্ষ টাকার প্রয়োজন,কোথায় পাবে এতোগুলি টাকা,কে দেবে তাকে, জীবনে কোন দিন সে পাঁচ হাজার টাকা এক সংঙ্গে গুনে দেখনি, উফ্ মাথাটা যেন গুলিয়ে যাচ্ছে, কিন্তু কোন উপায় সে দেখতে পারছে না,হঠাৎ মনে পড়ে গেল নিজ গ্রামের সুদখোর মহাজনের কথা, তার কাছে গেলে হয়তো একটা উপায় বের করা যাবে,কালক্ষেপন না করে সে বেরিয়ে পড়লো মহাজনের বাড়ির উদ্দ্যেশে, বাড়িতে প্রবেশ করতেই মহাজন কাচারী ঘরের বারান্দায় বসে সে গড়গড়ায় আগুন লাগিয়ে তামাক সেবন করছে, রমিজ সালাম দিলো, মহাজন সালামের উত্তর দিয়ে পাশে বসার জন্য অনুরোধ করলো, তুমি রমিজ না? জী চাচা আমি রমিজ বলো কেমন আছো? ভাল, কি ব্যাপার হঠাৎ আমার বাড়িতে? না-মানে আমার কিছু টাকার প্রয়োজন তাই আপনার কাছে আশা, কি ব্যপার হঠাৎ তোমার টাকার প্রয়োজন পড়লো কেন? আমি যতদুর জানি তোমার বাবা মৃত্যুর পর তোমার ভাই তোমার সব দায় দায়ীত্ব নিজের কাঁধে নিয়ে নিয়েছে, তাহলো টাকার প্রয়োজন কেন? আমার

চলবে- – –