ছলোনাময়ী নারী : কাঞ্চন চক্রবর্তী

ছলোনাময়ী নারী
পর্ব (০৩)
কাঞ্চন চক্রবর্তী

শুধুমাত্র বড়ভাই- ভাবি আর আমি পরিবারে আমরা তিনজন,জমিজমা কেমন আছে? ধানি জমি কুড়ি বিঘা আর বাড়ি এক বিঘা হবে, বিয়ে করেছেন? না পড়াশোনা শেষ করে চাকরির একটা বন্দবস্ত করে তার পর বিয়ের কথা ভাববো, এতোক্ষন তো আমার কথা বল্লাম আপনার কোন কথাই তো শোনা হয়নি, বলবো সবই বলবো, আমার নাম রূবি খানম বাড়ি বারিধারায় বাবা এক্সপোর্ট ও ইনপোটের বিজনেজ আছে, বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান আমি, মাদ্রসায় আরবি লাইনে সামান্য লেখাপড়া করেছি বাক্যালাপ শেষ না হতেই ফোনের সংযোগ বিছিন্ন হয়ে গেল, কারন রমিজের ফোনের চার্জ শেষ হয়ে গিয়েছিল,যতদিন রমিজের ফোন ছিল না ততদিন তার পড়াশোনা ভাল চলছিল এখন ফোন হাতে পাওয়ার পর কি যেন সব সময়ে ভাবতে থাকে কোন কাজে তার মন বসে না,সব সময় নিরব থাকে। ঠিকমত খাবার খায়না রাতে ঘোমায় না কেমন যেন উদাশিন,
বয়স আর কতোই বা হবে বড়জোর কুড়িই না হয় হবে,এই বয়সে কোন মেয়ের প্রেমের ফাঁদে কোন ছেলে পড়ে তাহলে সেই ছেলের জীবন লন্ডভন্ড হয়ে যাবে এটাই স্বাভাবিক।
পরদিন সকালে ফোনের রিং বেজে উঠলো রমিজের বুকের মাঝখানটা বজ্রপাতের ন্যায় চমকে উঠলো, ফোনটা রিসিভ করতেই সুরেলা কণ্ঠে আই লাভ ইউ ডার্লিং কেমন আছো? ভাল,এখন কি করছো? পড়ার টেবিলি পড়ছি, ও একটা কথা বলতে চাই, যদি তুমি কিছু মনে না করো! কেন মনে করার কি আছে? বল কি বলতে চাও? না এমন কিছু নয় আজ ছয় মাস হয়ে গেল তোমার সাথে শুধু

চলবে,