ছলোনাময়ি নারী : কাঞ্চন চক্রবর্তী

ছলোনাময়ি নারী
কাঞ্চন চক্রবর্তী
পর্ব (০১)

রমিজ এবার আই এ পাশ করে বি এ পরিক্ষার জন্য জোর প্রস্তুতি নিচ্ছে, সামনে ফায়নাল পরিক্ষার পাশ করে এম এ পড়বে, সংসারে বাবা-মা নেই, বড় ভাই বিয়ে করে রীতিমত ঘর সংসার করছে,সে লেখাপড়া বেশিদূর করতে পারিনি, কারন বাবা-মা মরার পর সংসারের দায়ীত্বটা যেন তার ঘাড়ে এসে পড়লো,একমাত্র আয়ের উৎস মাঠে কুড়ি বিঘা জমি,আর বাড়ির জমি একবিঘা মত হবে, জমির ধান বছরের খাবার হওয়ার পর কিছু ধান বিক্রি করে বাকি খরচ পরিচালনা করা হয়।দুই ভায়ের মাঝে সেতু বন্ধনটা খুব চমৎকার, কখনও ঝগড়া বিবাদ বাঁধতে দেখা যায়নি, ছোট ভাই রমিজের সমস্ত খরচ বড় ভাই দিয়ে থাকে, সংসারে আয়-ব্যয়ের হিসাব রমিজ চাইনি, আর প্রয়োজন ও মনে করেনি,বড় ভাইকে পিতার মত শ্রদ্ধা করে রমিজ।অনেক দিন বড় ভাইয়ের কাছে একটি মোবাইল ফোনের জন্য আব্দার করে আসছিল রমিজ, সংসারের ঘাণি টেনে বাড়তি খরচ করা অসম্ভব হয়ে উঠছিল বড় ভাইয়ের, সেজন্য রমিজের মনটা খুব খারাপ কয়েক মাস যাবৎ, বড় ভাই সংসারের কিছু হাঁস মুরগি ও একটি ছাগল বিক্রি করে শহর থেকে একটি আধুনিক মোবাইল ফোন ক্রয় করে দুপুরে বাড়ি ফিরে রমিজের হাতে দিয়ে বললো এইনে, তোর মনের আশা আজ পূর্ণ হল এবার খুশিতো? ফোন হাতে পেয়ে রমিজের যে কি আনন্দ সে বলে বোঝানোর অবকাশ নেই, বাড়িতে বর্তমানে একটা ফোন থাকা বড় জরুরী,কারন যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির সাথে-সাথে এটা সবার যুগের চাহিদা মাত্র। রমিজ ফোনটা হাতে নিয়ে সবকিছু উলট

চলবে,