মোংলায় চুরির অপপ্রচারের দায়ে শিপিং এজেন্টকে ৫শ ডলার জরিমানা

ফিরোজ শাহ, মোংলা :মোংলা বন্দরে অবস্থানকালে একটি বিদেশী জাহাজে কথিত চুরির ঘটনা অপপ্রচারের দায়ে ওই জাহাজটির শিপিং এজেন্টকে ৫শ মার্কিন ডলার জরিমানা করেছে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ। গ্যাসবাহী বাণিজ্যিক জাহাজে চুরির বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচারে বন্দর ও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন্ন হওয়ায় এ জরিমানা আদায় করা হয়েছে।
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাষ্টার কমান্ডার ফখর উদ্দিন মঙ্গলবার দুপুরে এ জরিমানা আদায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
জানা গেছে, গত ২৪ জুলাই বৃহস্পতিবার রাতে মোংলা বন্দরের সাগর মোহনা সংলগ্ন ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকায় গ্যাসবাহী একটি বানিজ্যিক জাহাজে চুরি হওয়ার খবর মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষকে ফোনের মাধ্যমে জানায় স্থানীয় শিপিং এজেন্ট মেসার্স সি এশিয়া কর্তৃপক্ষ।
পরে স্থানীয় শিপিং এজেন্ট লিখিত আকারে গ্যাসবাহী এমটি সেন্না-৫ নামের এ জাহাজটি বন্দরের শিল্প এলাকায় আসার পথে কয়েকজন চোরাকারবারী চলন্ত জাহাজে উঠে ষ্টোর ভেঙ্গে কয়েকটি মুরিং রোপ নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন তারা। তবে ওই সময়ই বন্দর কর্তৃপ∂ চলন্ত জাহাজে চুরির ঘটনাটি সন্দেহ হয়। কারন বর্তমানে বঙ্গোপসাগর এবং বন্দর এলাকায় দুর্যোগপুর্ন আবহাওয়া বিরাজ করায় সাগর মোহনা প্রচন্ড উত্তল।
এছাড়া কোষ্টগার্ড ও নৌবাহিনীর সদস্যরা সর্বক্ষণিক টহলরত রয়েছে, সেখানে সামান্য ট্রলার বা নৌকা দিয়ে জাহাজের গায়ে ভিড়ে চুরি করা কোন রকমই সম্ভব নয়। গ্যাসবাহী ওই বাণিজ্যিক জাহাজটি ২৫ জুলাই শনিবার বন্দরে প্রবেশ করে সকালে চালনা থানার বি এম এনার্জি টার্মিনাল নামের একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান গ্যাস কারখানায় এবং ওই দিন বিকালে বন্দরের শিল্পাঞ্চলের অন্য একটি গ্যাস ফ্যাক্টরীতে গ্যাস খালাস করার পর ওই লিখিত অভিযোগের সুত্রধরে পর্যবেক্ষণ শুরু করে বন্দর কর্তৃপক্ষ।
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাষ্টার কমান্ডার ফখর উদ্দিন জানান, বন্দরের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে পর্যালচনা করে জাহাজের সিসি ক্যামেরা এবং ক্যাপটেনসহ অন্যান্য নাবিকদের সাথে আলাপ আলোচনা করে চুরি হওয়ার কোন ঘটনা সত্যতা পাওয়ায় যায়নী।
এদিকে চুরির এ বিভান্তিকর তথ্য প্রচার হওয়ায় বন্দর ও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হওয়ায় বন্দর কর্তৃপক্ষ ওই জাহাজটির স্থানীয় শিপিং এজেন্ট মেসার্স সি এশিয়া শিপিং কর্তৃপক্ষকে ৫শ মার্কিন ডলার জরিমানা করে এবং জাহাজটিকে দ্রুত বন্দর ত্যাগের নির্দেশনা প্রদান করেন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ।