ক্ষণজন্মা নর : কাঞ্চন চক্রবর্তী

ক্ষণজন্মা নর
কাঞ্চন চক্রবর্তী

ক- কল্য করিব বলিয়া যাহা রাখিয়া দিবে ভবে,
খ- ক্ষণজন্মা নর সম্পন্ন করিতে পারিয়াছে কবে?।
গ- গন্তব্যে ফিরিতে সময় বেশি নাহি বাকি,
ঘ- ঘৃণ্য কর্ম সাধন করিলে থাকিতে হবে একাকি।
চ- চাহ যদি পরিত্রাণ তবে স্ব-যতনে চাও ক্ষমা,
ছ- ছাড়িও না পদতার যত আছে পাপ জমা।
জ- জানা আর বোঝার পৃথিবীতে নেই কোন শেষ,
ঝ- ঝঞ্ঝা আসতে পারে সতর্ক থাকলে কেটে যাবে রেশ।
ট- টাকার অহংকার ক্ষনিকের বিদ্যা জীবন ভর,
ঠ- ঠুনকো অতি জীবন নদী বহে তব ধরার তর।
ড- ডঙ্কা মাদল বাজে যদি নিজ হৃদয় মাঝে,
ঢ- ঢাকের শব্দ মন বসেনা বাজলে সকাল সাঁঝে।
ত- তত্ত্ববাক্য বলেন যিনি তিনি কতটা জানেন,
থ- থলের বিড়াল বেরিয়ে গেলে অন্যের কাছে শোনেন।
দ- দরোদ বেশি সৎ মায়ের নিজ মায়ের চেয়ে বেশি,
ধ- ধরায় বুকে এমন কথা শুনলে লাগে হাসি।
ন- নারীজাতি যদি লক্ষিহয় তাহলে অলক্ষি হবে কারা,
প- পাপির কর্ম পাপ করা জীবন তাদের সারা।
ফ- ফাঁকি বাজরা পড়ে দেখ শুভংকরের ফাঁকে
ব- বন্ধন ছিন্ন করে সার্থ ফুরালে অযন্তে রাখে।
ভ- ভাব শতবার কর্ম সম্পাদনে যেন না হয় ভুল,
ম- মাথা ঠান্ডা রেখে কর্ম না করিলে
য- গুনতে হবে মাসুল।
র- রিক্ত হস্তে সবাই এসে ধরায় হয় পরিপুর্ণ,
ল- লক্ষযোজন সাধনা করেও কেহ হয় শূন্য।
ব- বংশ দিয়ে বিচার করা যায়না তার কর্ম,
শ- শঙ্খা থাকিলে জানিবেনা কি তার মূল মর্ম।
স- সাধন ভজন সবে পারে কি করতে অর্জন,
ষ- ষঠ ব্যাক্তি হস্তে পেয়েও করে তার বর্জন।
হ- হংশারুঢ়া মস্তকে যদি তুমি করতে পারো ধারণ,
ক্ষ- ক্ষণজন্মা হবে তুমি হবেনা তোমার মরণ।