বিত্তের মাফকাঠি :কাঞ্চন চক্রবর্তী

বিত্তের মাফকাঠি
কাঞ্চন চক্রবর্তী

ভাবনার আকাশে মেঘ উড়িয়ে ভেবেছিলাম আমি তোমাকে জয় করবো, তুমিও সেটাই চেয়েছিলে কিন্তু হঠাৎ বাঁধা হয়ে এলো কঠিন বাস্তবতা সেটা হ’ল দারিদ্রতা, আর এই দারিদ্রতাই আমার কাছে থেকে কেড়ে নিল তোমাকে,কখনও ভাবিনি তুমি আর আমি একে অপরের থেকে আলাদা হয়ে জীবন যাপন করতে হবে, বিধাতা হয়তো বাম ছিল তা নাহলে এমন তো হবার কথা নয়,সেদিন নিরালায় বকুলের বাগানে বসে দু’জনে প্রতিশ্রুতি করেছিলাম যে মরণ ব্যতিত আমরা একে অপরের সাথে আলাদা হবো না,কিন্তু আজ তুমি অন্যের ঘরণী আমি তখন বেকার এটাই ছিল আমার জীবনের ব্যর্থতা, আমি আজ লেখাপড়া শেষ করে উচ্চ পদে চাকুরী পেয়েছি, অর্থবিত্ত সম্মান প্রভাব প্রতিপত্তি সবই আমার হাতের মুঠোয়, কোন কিছুর অভাব আমার নেই,অভাব আছে শুধু তোমার ভালবাসার, সেদিন বকুল বনে বসে যে প্রতিশ্রুতি তুমি আমাকে দিয়েছিলে সেটা তুমি রাখতে পারনি সেটা তোমার ব্যর্থতা জানতাম অর্থদিয়ে ভালবাসার বিচার করা যায়না,কিন্তু সমাজ সেটা মেনে নেয়না,আজ আমি ইচ্ছা করলে তোমার চেয়ে অনেক সুন্দরী ও বিত্তবান পিতার কন্যাকে আমি সঙ্গীনি করতে পারি,অনেক বিত্তবান পিতার কন্যা আমার জীবন সাথী হবার জন্য অপেক্ষায় লাইনে দাড়িয়ে আছে,অন্য কোন নারীকে জীবন সঙ্গী করলে হয়তো জীবন শুরু করা যাবে, কিন্তু তোমাকে আমি সারা জীবনের জন্য ভুলে যাব,কিন্তু আমি তোমাকে ভুলতে চাইনা আমি অধোরা থাকতে চাই,কারণ অর্থদিয়ে তোমরা মানুষের জীবনের ভালবাসার মাফ কাঠিতে বিচার করো, আজ তুমি এসেছো আমার দ্বারে ভালবাসা ভিক্ষা চাইতে,যে সমাজে বিত্তের দাড়িপাল্লায় ভালবাসা ওজন করা হয় সেই সমাজের ভালবাসা আমি ঘৃণা করি, ভাল থেকে বন্ধু এজীবনে না হয় পরজন্মে বিত্তবান হয়ে তোমার সাথে জীবন কাটাবো,তখন আমার থেকে তোমাকে আর কেউ আলাদা করতে পারবেনা।

কাঞ্চন চক্রবর্তী
আড়পাড়া নদীপাড়া
কালীগঞ্জ ঝিনাইদহ