ছন্দময় স্তব্ধতা : ইন্দু

ইন্দু সহ সাধারণ সম্পাদক দুই বাংলার সাহিত্য নিকেতন খড়দহ, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত। টাইম ভিশন ২৪

ছন্দময় স্তব্ধতা
ইন্দু

এভাবে থেমে না গেলে হয়তো কোনোদিনও বোধগম্য হতো না চলতে থাকার প্রয়োজনীয়তা,
চলতে চলতে চলতে… আজ হঠাৎ যখন থেমে গেলাম, বুঝলাম যে জীবন মানেই চলা নয়,
কখনো কখনো সময়ের স্বার্থে, নিজের অস্তিত্বের স্বার্থে থেমে যাওয়াটাও একটা জীবন;
দরজার বাইরে আজ মৃত্যু এসে কড়া নাড়ছে-
নিস্তব্ধ শহরের ঝিমিয়ে পড়া অলি গলি অ্যাম্বুলেন্সের শব্দে আঁতকে উঠছে ঘন ঘন,
বদ্ধ দরজার এপারে আমি নিজেকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য তৈরি করেছি এক অদৃশ্য ব্যারিকেড,
তবে কী করে বলো তুমি জিইয়ে রাখার মানেই এক পা দু পা করে মৃত্যুর দিকে হেঁটে যাওয়া?
নাহ্ ভুল!!
জীবনের লক্ষ্য মৃত্যু নয়,
যেদিন থেকে ঘোষিত হয়েছে আইনজারিত জীবন, সেদিনই এই সূত্রটি মিথ্যে প্রমাণিত হয়েছে-
জীবন কেবলমাত্র জীবনের জন্য, বাঁচার জন্য…
আমি এতোদিন পথে পথে পৃথিবী খুঁজে শ্লোগান দিচ্ছিলাম,
তুমি দুহাত পেতে পৃথিবীর কাছেই পৃথিবী চেয়েছো,
কিন্তু আজ দেখো-
তুমি আমি নিজেরাই এক একটা আস্ত পৃথিবী হয়ে গেছি,
নিজের মধ্যে থাকা পৃথিবীটাকে খুঁজে নিয়ে সাজিয়ে ফেলেছি বাঁচার মতো করে,
স্বপ্ন দেখছি, ভবিষ্যত তৈরি করছি নিজেদের একলা সত্বার মধ্যে…
এই একাকীত্ব না এলে হয়তো কোনোদিনও বুঝতে না সঙ্গ কতখানি সঙ্গী!!
পৃথিবীর কাছে ঋণের বোঝা বেড়ে গেল,
ঝুঁকে পড়েছে সমস্ত সভ্যতার মারপ্যাঁচ নিখাদ মাটির বুকে,
একটি অমোঘ সত্য আজ সমস্বরে স্বীকৃত-
মাটির দিকে মাথা নত না করলে আকাশ দেখা বড় দায়…

কোলকাতা, ভারত