পৃথিবী এখনো তোমায় খুঁজে বেড়ায় : অভ্রনীল আজাদ

পৃথিবী এখনো তোমায় খুঁজে বেড়ায়
অভ্রনীল আজাদ

কোন একদিন স্বপ্নময় ভোরে
যখন তোমার মুখ উঁকি দিবে হঠাৎ
আমিও বিছানা ছেড়ে উঠবো জেগে ত্বরিত,
নবারুণের লাল কাপোল ছুঁয়ে দিগন্তও উঠবে নেচে,
নুপুরের ধ্বনি তার শুনবেনা কেউ—
খুব বেশী ভালোবাসলে—শোনে শুধু প্রেমিক পুরুষ!
কোন এক দিন স্বপ্নময় ভোর—
তোমার অপার্থিব মুখ…
মৃদু মন্দ হাওয়ায় শিশিরের আলিঙ্গন…
ঘাসের বুকে বিন্দু বিন্দু মুক্তোর চমক…
প্রাণ পেয়ে জেগে ওঠা বাংলার মেঠো ফুল…
বিলের – ঝিলের শাপলা-শালুক,
পানকৌড়ির ঠোঁটে বাঁশপাতা মাছের ঝিলিক—
শুধু আমিই দেখবো আর কেউ নয়;
অনন্ত বীথিকা পেড়িয়ে খুব সাহসে ধরবো সেই কিশোরীর হাত –
ধর্ম যাকে করেছিল ভীষণ পর— মানুষ নয়।
হায় তনুশ্রী!
পৃথিবী এখনো তোমায় খুঁজে বেড়ায়।

তোমাকে যে শৃংখলে বাঁধে –
কিতাবের পরেতে পরেতে স্বার্থের অভিলাষে – মন্ত্রের মিথ্যে যুক্তিতে
তার শত মুখ—আয়নায় হয়না বিম্বিত— সে যে নিষ্ঠুর।
হায় তনুশ্রী!
তুমি কালো হও , ধলো হও— নির্মল ভীষণ;
কে তোমায় কলঙ্কিনী বলে? কে তোমায় করে পর?
এখানে অস্পৃশ্য – অশুচি এক বাটে বেঁধে ছিল ঘর।
যে নাকে আঙ্গুল চেপে ধরে ঠাঁই নেই এই বাংলায় তার।