এমন সকাল আসে নি : কখনো ড. শাহনাজ পারভীন

ড. শাহনাজ পারভীন । টাইম ভিশন ২৪

এমন সকাল আসে নি কখনো
ড. শাহনাজ পারভীন

এমন সকাল আসেনি কখনো, এমন দিবস, রাত্রিকাল–
এমন সময় আগে তো আসেনি, কেউ দেখেনি কোন কাল!
সূর্য উঠেও ওঠেনা সূর্য, সকাল হয়েও শুরু হয় না দিন–
রাত্রি নামে না রাত্রির বেশে, চোখ মুখ তার ধু ধু মলিন।

পথঘাট সব হু হু করে কাঁদে পথিক কোথায়? পথে নেই কেউ–
নারী ও পুরুষ, কিশোর, কিশোরী, নেই আজ পথে শিশুদের ঢেউ।
নগর, বন্দর, জলাশয়, নদী, আত্মীয়-স্বজন, বৃক্ষ ও বন–
যেখানে যে ছিল ঠিক সেখানেই, দাঁড়িয়েই আছে আজ এখন।
কারো কোন কিছু নেই করবার, সকলেই আজ বন্দি গৃহে–
যে যত করুক ছল চাতুরি অথবা আটুক ফন্দি হে!

মানুষ আজকে শত্রু মানুষের, শত্রুও আজ নিজের হাত–
করোনা সময়ে অসহায় আজ, হতাশাগ্রস্ত অকস্মাৎ
তাই ঘরে থাকো সন্তান আমার, গৃহে থাকো ওগো বন্ধু স্বজন–
ঘরে আছি আমি, ঘরে থাকো তুমি, বেঁধে রাখো ঘরে দেহ ও মন।

খেটে খাওয়া জন, বিপদে ভীষণ বাইরে না গেলে মেলে না ভোজ–
অথচ ক্ষিদে দাউ দাউ জ্বলে, দেহের কোটরে কেবা রাখে খোঁজ।
দিনরাত ক্ষিদে খুঁটে খুঁটে খায়, খুচে খুচে মারে পেটের ভেতর–
অথচ কষ্ট গুমোট নীরব ভাতহীন কত সইবে গতর!

এক, দুই, তিন, একমাস হলো যাবতীয় দিন এখনো বাকি–
বল হে বিশ্বের মালিক বলো, এ ক্ষিদে আমরা কোথায় রাখি?
অথচ তুমি তো কত মহাজন কত বড় ত্রাতা! জানি সেই সব!
আজকে কী হলো বিশ্বে তোমার ঝাঁঝ বেড়েছে, মহোৎসব!
ফাঁকা চাল, ডাল, নুন, মরিচের কৌটা গুলো সব উপুড় আজ–
চাল চোর তবু খেলছে খেলা– চিরকাল তারা ধান্দাবাজ!

জনগোষ্ঠীর নেপথ্য কাহিনি কেড়েছে তাদের অধিকার আর–
ভাত দাও; সব হাভাতের দল নইলে খাবে যে নদীর পাড়।
আকাশ, জমিন, পাহাড়, প্রাচীন চৈত্রের ফাঁটা মাঠ খাবে আর–
খাবে বৃক্ষ, পথ, ঘাট, পশু, মানুষ, খাবে সে ধারে না তো ধার!

কোন কিছু খেতে বাদ রাখবে না, যখন পেটে তার খিদের ঝাল–
অতীত জেনেছে, ভুখা আজ তারা খেয়ে ফেলবেই কাল মহাকাল।
সমুদ্র ছেড়েছে হাজার তিমি উপকূলে আজ গড়েছে বাস–
বন্যপ্রাণী বন ছেড়ে তারা প্রকাশ্য রাস্তায় গড়ে আবাস।
উঠেছে তুফান ফুটেছে আগুন দেশে দেশে আজ মড়ক কাল–
গণ কববরের অভ্যুত্থানে মানুষের লাশ বড় জঞ্জাল!

জেনেছি তিনিই পারেন যখন, ইচ্ছে যেমন তেমন সাজ–
মহাপ্রভু! তুমি ক্ষমা করে দিয়ে ফিরিয়ে দাও ফের হাতের কাজ।