কৃষক বধুর হাসি : মোঃ ইলিয়াছ আহমেদ

ইলিয়াছ আহমেদ , বিজেশ্বর , ব্রাহ্মণবাড়িয়া। টাইম ভিশন ২৪

কৃষক বধুর হাসি

মোঃ ইলিয়াছ আহমেদ

চৈত্রের খড়তাপে তপ্ত রোদে কৃষকের
ধান ক্ষেতে ধূসর বালি উড়ছে,
চৈত্রের চৌচির রোদে আমের মুকুল
আর কাঁঠালের মুচি ঝরছে।

হাল বিল নালা শুকিয়ে গেছে প্রকৃতির
নেই কোন বৃষ্টি কৃত্রিম পানি,
অসহায় নিরুপায় সজল অশ্রু জলে
ভাসে শুধু আশার বুক খানি।

পাতা বিহীন বৃক্ষ নির্বাক হয়ে চেয়ে
আছে সুনীল আকাশের দিকে
কোন প্রতিবাদ করতে পারেনি অসহায়
হয়ে শুধু দাঁড়িয়ে থাকে।

মাচায় জড়ানো সবুজ লতা পুইশাকের
গাছটা লাউয়ের সতেজ ডগাটা
জরাজীর্ণ হয়ে পড়ছে কলমি লতার
শাখের কচি পাতার বাগটা।

বৃষ্টির ছোঁয়া পেলেই যেনো সজীবে
সতেজে হয়ে উঠবে আজি,
উঠবে আউশ আর আমন ধানে বিলের
মাঠ আর বৃক্ষরাজি।

হারু মাঝি মনের দুঃখে কাঁদে দুই
চোখে বসে কদম খেয়া ঘাটে,
কতো আশা ভরসা ছিলো সবই ভেঙে
গেলে শূন্য বাজার হাটে।

সোনার ফসল নৌকায় করে করবে
পারাপার পাবে কিছু ধান,
সবই যেনো অসহায় নির্মম পরিহাসের
নির্দয় বড়ই প্রকৃতির দান।

কৃষক বধুর মুখে কতো আহাজারী
নেই হাসি বুকে কতো আর্তনাদ,
বর্গাদারের জমির ফসলের ভাগ কি
করে দিবে ভয়ে থাকে দিন রাত।

ভরবেনা ইরি আর বুরো ধানে গোলা
এবার যাবে বুঝি খালি,
কিভাবে চলবে বারো মাসের তেরো
পার্বণে সুখের সংসার খানি।

সরকার মওকুফ করেছে কৃষকের ধার।
ব্যাংক ঘরে যেতে হবেনা আর বার বার।
মাথায় নিতে হচ্ছেনা তার ভর্তুকির ভার।

কৃষক বধুর মুখে ফোটেছে রাঙা হাসি,
মুষ্টি চালে চলবে দিনরজনী দিনাপাতি।

চৈত্রের শেষে বৈশাখের এই দিনে
খই আর ভিন্নি ভাজা মুড়ির ঘ্রাণে।
মমতায় জড়িয়ে থাকি হৃদয়ের টানে,
কৃষক কৃষাণীর কন্ঠে বেজে উঠে গানে।

সবুজ শ্যামল লতা পাতার গাছের ছায়ায়।
আঁকড়ে থাকি মাটির গন্ধে মৃত্তিকার মায়ায়।
নতুন করে স্বপ্ন আঁকি মোরা জীবন খাতায়।

ইলিয়াছ আহমেদ
বিজেশ্বর , ব্রাহ্মণবাড়িয়া