দুর্ভাগা মাঝির গল্প : জবাশ্রী দাশ গুপ্তা

দুর্ভাগা মাঝির গল্প : কবি জবাশ্রী দাশ গুপ্তা,, টাইম ভিশন ২৪

দুর্ভাগা মাঝির গল্প
জবাশ্রী দাশ গুপ্তা

অথৈ দরিয়ায় প্রাণের তরী ভাসায়ে চলেছে মাঝি,
ভাবেনি-আছে জলের ও ছলে তীব্র কারসাজি।
তবু ও চলেছে বৈঠা নির্ভরে জীবন যদিও ক্ষীণ,
জীবনের কাছে যে শুধে দিতে হবে এ জন্মের ঋণ।

তরী পালে,মৌসুম কালে,আশা ও নীরবে দোলে,
মাঝি সুখে গায় গীত, আশা জাগানিয়া বোলে।
তরী বয়ে যায়,নিশ্চিন্ততায়,মাঝি রয় আহ্লাদে,
গোপনে গহীনে,সন্তর্পণে প্রাণে, সুখ স্বপ্ন বাঁধে।

মাঝ দরিয়ায় তরীর বৈঠা কেড়ে নিলে সবলে,
দিকভ্রান্ত হয় সে মাঝির তরীখানি কল্লোলে।
হারায় মাঝি চতুর্কূল,পায় না জীবন দিশা
সলিল সমাধি হয় গো তার স্বপ্ন বোনার তৃষা।

বিশ্লিষ্ট হয়েছে মাঝিতে তরীতে,স্বপ্ন গেল ডুবে,
কেউ আসেনি,রক্ষিতে তরী দখিন হতে বা পূবে।
ক্লিষ্ট করেছে মাঝিরে তার অদৃষ্ট লিখন বিচারে,
মাঝি দিল চির বিসর্জন আকাঙ্ক্ষিত আশারে।

স্বপ্ন ডুবল,আশাহত হলো,মাঝি রইল আশাহীন,
সর্বহারা মাঝির তরী ও স্বপ্ন সহিত হল বিলীন।
সবলে হাসে,যাদের ত্রাসে ডুবল স্বপন আর তরী,
মাঝি তায় বাঁচে,যা ভালে আছে,দুঃসহ স্মৃতি স্মরি।

চট্টগ্রাম