ঝিনাইদহে প্রথম করোনা রোগী পজেটিভ

ডেস্ক: ঝিনাইদহে ঢাকা ও ফরিদপুর থেকে আসা এক স্কুল শিক্ষকসহ প্রথম দুইজন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

শনিবার সকাল ১১টার দিকে এই ফলাফল পৌঁছানোর পর সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম খবরটি নিশ্চিত করেছেন। আক্রান্তদের বয়স ৩২ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে।

তিনি জানান, শনিবার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯টি নমুনার ফলাফল পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে দুইজনের করোনা পজেটিভ এসেছে। তাদের মধ্যে ঝিনাইদহ শহরের উপ-শহরপাড়া হাসান ক্লিনিক এলাকার এক নারী স্কুল শিক্ষক রয়েছেন। তিনি গত ২০ এপ্রিল ঢাকার মহাখালী এলাকা থেকে মাইক্রোযোগে স্বামীর সঙ্গে ঝিনাইদহ আসেন। তবে তার স্বামীর নমুনা নেগেটিভ পাওয়া গেছে।

অন্যজন হচ্ছেন কালীগঞ্জ উপজেলার মোল্লাডাঙ্গা গ্রামের এক পুরুষ শ্রমিক। মোল্লাডাঙ্গা গ্রামে আক্রান্ত পুরুষটি ফরিদপুর উপজেলার ভাঙ্গা এলাকায় শ্রমিকের কাজ করতেন।

করোনা আক্রান্ত রোগীরা কি অবস্থায় আছে তা দ্রুত খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান সিভিল সার্জন।

তবে জেলাকে লকডাউন করার জন্য আগে থেকেই বিভিন্ন মহল থেকে দাবি জানানো হচ্ছিল। জেলায় করোনা রোগী শনাক্ত হলেও নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় চলছে শহরে চলাচলকারী ছোট যানবাহনগুলো। ৭/৮ জন যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে ইজিবাইক, রিকশা-মোটরসাইকেলেও একাধিক যাত্রী চলাচল করছে।

এগুলো নিয়ন্ত্রণে না থাকা এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সুপারিশের পরও জেলা লকডাউন না করায় চরম ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে সচেতন মহল। বিষয়টি নিয়ে সিভিল সার্জন অফিসের করোনা ইউনিটের চিকিৎসক ডা. প্রসেনজিৎ বিশ্বাস পার্থ জানান, সারাদেশে যেভাবে করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছ তাতে এভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখলে পরিস্থিতি আরো নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। তাই এখনই সবার উচিৎ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, যথাসম্ভব ঘরে থাকা।

পিএনএস