রমজানে কিভাবে ইনজেকশন নেবেন ব্যাখ্যা দিলের মিজানুর রহমান

ডেস্ক : নানা অসুস্থতায় মানুষকে ইনজেকশন নিতে হয়। আবার কেউ বিভিন্ন রোগের টিকাও নিয়ে থাকেন। রমজানের মধ্যেও এসব ইনজেকশন নিতে হয় অনেককে। সব ধরনের ইনজেকশনে রোজা ভাঙবে না বলে জানিয়েছেন প্রখ্যাত ইসলামিক আলোচক মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী।

কী কারণে রোজা ভাঙবে-এমন আলোচনা করতে ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানে এসে আজহারী এ কথা জানান।

মিজানুর রহমান আজহারী বলেন, ‘অনেকেই প্রশ্ন করেন, রোজা রাখা অবস্থায় ইনজেকশন নেওয়া যাবে কি না? রোজা অবস্থায় ইনজেকশন নিলে রোজা ভেঙে যাবে যদি চারটি শর্ত পাওয়া যায়। এক নম্বর শর্ত, ইনজেকশনটা যদি এনারজেটিক হয় অর্থাৎ শক্তিবর্ধক, এনারজেটিক হলে রোজা ভেঙে যাবে। তারপর এটা যদি ফুড সাপ্লিমেন্টারি হয়, মানে যদি খাদ্যের পরিপূরক হয়। এরকম অনেক ইনজেকশন পাওয়া যায় যে আপনার দেহে পুশ করে দিলে তিন-চারদিন ক্ষুধাও লাগবে না, আর শক্তিতে ভরপুর থাকবে আপনার দেহ। ভিটামিন, মিনারেলস, পটাশিয়াম দিয়ে এত সমৃদ্ধ করা হয়েছে। এ জাতীয় ইনজেকশন নিলে রোজা ভেঙে যাবে। এরপর ইনজেকশনটা যদি নিউট্রিশিয়াস হয়, পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ, তবে রোজা ভেঙে যাবে। আপনার পাকস্থলিতে যদি ইনজেকশনের কোনো অংশ ঢোকে তাহলেও রোজা ভেঙে যাবে।’

এই ইসলামিক আলোচক বলেন, ‘এই চারটির বাইরে ইনজেকশন নিলে আপনার রোজা ভাঙবে না, যেমন ‘‘পেইনকিলার’’। আপনার প্রচণ্ড ব্যথা, ব্যথানাশক ইনজেকশন, পেইনকিলার ইনজেকশন দিলে আপনার রোজা ভাঙবে না। এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন, রোজা ভাঙবে না। অনেকের ভ্যাকসিন দেওয়া লাগে, এইচবিএস ভ্যাকসিন, জন্ডিসের ভ্যাকসিন দিতে হয় এতে রোজা ভাঙবে না।’

প্রসঙ্গত, আজ শুক্রবার দেশের আকাশে চাঁদ দেখা গেছে। আগামীকাল শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে মুসলমানদের বহু প্রতীক্ষিত সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান। রমজান উপলক্ষে আজ রাত থেকেই শুরু হচ্ছে তারাবির নামাজ। রাতের প্রথমভাগে তারাবি নামাজ আর শেষ ভাগে সেহরি শুরু হবে।

পিএনএস