মিডিয়া জগতে জিন্নাত আলীর সাফল্য

স্টাফ রিপোর্টার: চট্রগ্রাম জেলার পাহারতলী উপজেলার অপরূপ টিভি’র চেয়ারম্যান জিন্নাত আলী মিডিয়া জগতে সাফল্য অর্জন করছেন।
সাফল্যের অনেক গুলো ব্যাখ্যা থাকতে পারে তবে সাফল্য পরিমাণ করার বহুল কিছু মাধ্যম আছে এর মধ্যে কিছু উল্লখ্যযোগ্য মাধ্যম হচ্ছে জ্ঞান মানসিকতা ,শান্তি, ধন-সম্পদ সামাজিক অবস্থা এবং মুখের ব্যবহার ও মানুষের ভালোবাসা এগুলো যদি আপনার মধ্যে থাকে আপনি নিজেকে সফল বলতে পারেন । সফলতা এমন কিছু বিষয় যা সহজে অর্জন করা যায় না,এর জন্য কঠোর পরিশ্রম অধ্যবসায় সংকল্প, এবং প্রচন্ড ইচ্ছে শক্তির প্রয়োজন হয়।কোন কাজে সাময়িক ব্যর্থ মানে হতাশ হওয়াটা কাম্য নয়।আপনি সৃষ্টির সেরাজীব আপনাকে হতাশ হওয়া চলবে না।আপনার ভেতরে থাকা সুপ্ত প্রতিভাকে জাগাতে হবে।
চট্টগ্রামের ছেলে মোহাম্মদ জিন্নাত আলী মিডিয়া জগতে পর্দার আড়ালে কাজ করতে পিছু হটান নাই, তিনি ছোটবেলা থেকেই বিনোদন মুখি ছিলেন, ১৯৯৯সালে মঞ্চনাটক হতে মঞ্চনাটকে তিনি একসময় অভিনেতা-অভিনেত্রীদের রিহার্সাল সময় কর্মকাণ্ড দেখতেন, একসময় সুযোগ পেয়ে যান একটি “চাকর চরিত্র” অভিনয় করার জন্য সেই নাটকে অভিনয়ে দর্শক নন্দিত হয় তখন থেকে শুরু একের পর এক মঞ্চ নাটকের অভিনয় করার।এপযর্ন্ত প্রায় ২৫টি মঞ্চনাটকে অভিনয় করেন,তারপর মঞ্চ নাটক লেখা শুরু করেন তার লেখা নাটক মঞ্চায়িত হয়” মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক নাটক” রক্তভেজা শার্ট, মরণ যদি হয়, চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় রচিত মানের সাম্পানে আরো অসংখ্য নাটক,শুধু তাই নয় তিনি বড় বড় নামধারী হোটেলে ইভেন্টের প্রোগ্রাম করতেন।
বাংলাদেশের স্বনামধন্য ও চলচ্চিত্র শিল্পীদেরকে নিয়ে ফ্যাশন শো মডেলিং নিয়ে ক্যাটওয়াক ও বিজ্ঞাপন নির্মাণ কাজ করেছেন অনেকদিন। ১৯৯৬ সালে বিটিভির প্যাকেজ নীতিমালার আওতায় তার জিন্নাত আলী পরিচালনায় ও পরিকল্পনায় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ও মুখর ১২শত দর্শক উপস্থিতিতে ২৪শে অক্টোবর ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে শুটিংয়ের কাজ সম্পন্ন হয় দুঃখের বিষয় অনুষ্ঠানটি বিটিভির প্রিয় কমিটিতে জমা দেয়ার পর রাজনৈতিক কারণ দেখিয়ে আপিল করার জন্য চিঠি প্রদান করেন। ১৯৯৯ সালে চট্টগ্রাম কেন্দ্রে ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান অপরূপ ,জিন্নাত আলী গ্রহন্ত ও পরিকল্পনা ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান অপরূপ ৩৫ পর্ব ধরণও প্রচার হয়। ২০০৫ সালে জিন্নাত আলী শুরু করেন।
মিউজিক ভিডিও ও টেলিভিশন ভিডিও সিড়িতে সাউন্ডট্র্যাক থেকে পরিবেশিত হয়।মিউজিক ভিডিও টেলিফিল্ম এডিটিং গ্রাফিক্স ডিজাইন নিজেই সম্পাদনা করতেন।যেসব মিউজিক ভিডিওর টেলিফিল্ম বানিয়েছিলেন তারমধ্যে “চুপিচুপি প্রেম” এ মন মানে না, যারে চাইলাম তারে পাইলাম ,সুন্দরী মাইয়া, ফুলের মালা, চুপি চুপি প্রেম এছাড়া ইসলামিক অনুষ্ঠান করছেন, শুধু তাই নয় তিনি ক্যামেরাম্যান হিসেবে খুব দক্ষ ও পারদর্শী।
৫ই জুলাই ২০১০ এটিএন নিউজের উদ্বোধন শুরু থেকে জিন্নাত আলী বানানো হোম ভিডিও প্রায় সাতটি আইটেম ভিডিও এটিএন নিউজের চ্যানেলে নিয়মিত ভাবে প্রচারিত হয়। ২০০৭ সাল অপরূপ প্রোডাকশন ব্যানারে তার পরিচালনায় নির্মিত একের পর এক মিউজিক ভিডিও টেলিফিল্ম ভিডিও সিডি বের হয়।সবশেষে ডিজিটাল যুগে তিনি যোগ দেন।
জিন্নাত আলী অপরূপ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান থেকে অপরূপ প্রোডাকশন হাউজ ,প্রোডাকশন হাউজ থেকে অপরূপ টিভি অনলাইন ২০১৭ সাল থেকে প্রায় পাঁচ বছর চালিয়ে যাচ্ছেন, প্রায় ইনভেস্ট করা হয়েছে ১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকার মতন ,নিবন্ধন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।চ্যানেলটির যদি নিবন্ধন হয়, তাহলে উদ্যোগ নিবেন কমপক্ষে একশ’জন মানুষের কর্মসংস্থানের জন্য। জিন্নাত আলী,জাতীয় ক্রাইম রিপোর্টার্স সোসাইটি’র সাংবাদিক মোঃ এনামুল হক এর প্রশ্নের জবাবে জিন্নাত আলী বলেন আমার শেষ ইচ্ছা অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং তাদের একটি কর্ম সংস্হান করে দিবেন।চট্রগ্রামের জিন্নাত আলী সকলেরই একজন প্রিয় মানুষ তিনি এভাবেই প্রিয় থাকতে চান।