রামনগর ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

নাসির উদ্দিন নয়ন কুয়াদা(যশোর)প্রতিনিধি:

যশোর সদর উপজেলার ১১ নং রামনগর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে সংবাদ কর্মীদের হেনস্থা ও অসহযোগিতাসহ নানা অভিযোগ উঠেছে। তার বিরুদ্ধে এখন অভিযোগের পাহাড় জমেছে। যশোরের জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউ এন ও এর কাছে এ সংক্রান্ত দুটি অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। অনতি বিলম্বে এই অভিযুক্ত সচিব কে অন্যত্র বদলির আবেদন করেছেন কুয়াদা প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ। একই সাথে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের আর্জি তাদের।
ঘটনার বিবরনে জানা যায়, ৭ সেপ্টেম্বর সাকলে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে একদল সংবাদ কর্মী বা সংবাদ প্রতিনিধি রামনগর ইউনিয়ন পরিষদে যায় কোভিড ১৯ ভ্যাকসিনের ২য় ডোজ এর খোজ খবর নিতে। মাঠে কি পরিমান মানুষ আছে এবং কারা টিকা পাচ্ছেন তার সংবাদ সংগ্রহ করতেই এসব সংবাদ প্রতিনিধি সেখানে অবস্থান করছিলেন। এসময় সচিব মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের কটুক্তি করে সেখান থেকে চলে যেতে নির্দেশ দেন। গায়ে ধাক্কা দিয়ে সে কয়েকজনকে অপমানিতও করেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক ভোরের চেতনা ও যশোরের দৈনিক প্রজন্মের ভাবনা পত্রিকার প্রতিনিধি ওয়াজেদ আলী কে এসময় ঐ ইউপি সচিব লাঞ্চিত করেন। ওয়াজেদ আলী বিষয়টি কুয়াদা প্রেসক্লাব কতৃপক্ষকে জানায়। কুয়াদা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক বিষয়টি লিখিত অভিযোগ করেন ঘটনার দিনই।
কুয়াদা প্রেসক্লাবের সভাপতি দুলাল সমদ্দার ও সাধারন সম্পাদক রাশেদ হোসেন এর পক্ষে যুগ্ম সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দীন নয়ন স্বাক্ষরিত অভিযোগ পত্র দুটি জেলা প্রশাসক ও সদর ইউএন বরাবর পেশ করা হয়েছে। এ বিষয়ে প্রেসক্লাব কতৃপক্ষ বলেছেন, ১১ নং রামনগর ইউপি সচিব মিজানুর রহমান একই ইউনিয়নের বাসিন্দা হওয়ায় তার প্রতি কাজে ক্ষমতা জাহির করার মানসিকতা রয়েছে। এ কারনে সে সাংবাদিক বা জন সাধারন কাউকেই তোয়াক্কা করেনা। দূর্নীতি, ক্ষমতা জাহির, ইউপি সচিব মিজানুর রহমান এলাকায় বিভিন্ন গ্রামে বা বাজারে। এমনকি জন প্রতিনিধিরাও যেন তার কাছে জিম্মী। চেয়ারম্যান পক্ষে থাকায় সে কাউকে গুনতির মধ্যে ধরেনা বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন। ক্ষমতার দাপটে এই সচিব অন্ধ হয়ে যা ইচ্ছে তাই অপকর্ম করছেন মর্মে বহু দিনের অভিযোগ রয়েছে। এ কারনে সাধারন মানুষ তার উপর বেজায় ক্ষীপ্ত। সাংবাদিক ও সাধারন মানুষ এই ইউপি সচিবের দ্রুত বদলি করে ইউনিয়ন পরিষদকে রাহুমুক্ত করে তা সাধারন জনগনের জন্য উপযুক্ত করতেই তাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলেও স্থানীয়রা মতামত দিয়েছেন।