ঝিকরগাছায় মানুষের অবাধ চলাচল ঠেকাতে বাঁশ বেঁধে ব্যারিকেড

ঝিকরগাছা সংবাদদাতা:

টাইম ভিশন

যশোরের ঝিকরগাছা পৌরসভার মানুষের অবাধ চলাচল ঠেকাতে পৌরসভার পক্ষ হতে গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে মোড়ে বাঁশ বেঁধে ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। সরকারি বিধি নিষেধের আওতায় থাকলেও বিধি নিষেধের মধ্যেও মানুষ প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে ঘর থেকে বাইরে বের হচ্ছে। রাস্তায় বেরোলে খুব একটা বোঝার উপায় নেই যে সরকারি বিধি নিষেধের আওতায় রয়েছে। এরই জন্য মানুষকে করোনা ভাইরাসের বিধি নিষেধের কথা মনে করাতেই বাঁশ বেঁধে ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। তবুও মানতে না রাজ সাধারণ মানুষ। ক্রমাগতই করোনা ভাইরাসের শুরু থেকেই পৌরবাসীর পাশে থেকে মেয়র আলহাজ্ব মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল। তিনি পৌরসভার পক্ষে প্রকাশে ও অপ্রকাশে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছেন। পৌর মেয়রের নিকটে ছোট হোক আর বড় হোক কেউই নিরাশ হয় না। সম্প্রতি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ শুরু হওয়ার পরে স্কুল কলেজ সব বন্ধ। এরই মধ্যে ১০-১২জনের বাচ্চা এসে তাকে বলে দাদু আমাদের একটা বল দিবেন। তিনি তাদের কথা শোনা মাত্রই তাদের একটা বলের ব্যবস্থা করে দেন। বর্তমান করোনা ভাইরাসের প্রদুর্ভাবে পৌর এলাকায় অসংখ্য পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেট, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড গ্লাভস, এ্যাপরন সহ আরো অনেক কিছুই বিতরণ করেছেন।
পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল বলেছেন, আমরা সচেতন হতে পারলেই, করোনা ভাইরাসও নিয়ন্ত্রয় করা সম্ভব। করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের নির্দেশনায় প্রয়োজনে বাইরে গেলে মাস্ক পরিধানসহ সকল ধরণের স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন নিশ্চিত করতে হবে। ১৯৭১ সালের যুদ্ধের সাথে বর্তমান যুদ্ধের খুব বেশি পার্থক্য নেই। পার্থক্য তখন শত্রু ছিল দৃশ্যমান পাকিস্তানি খান সেনা। বর্তমান শত্রু অদৃশ্য এক ভাইরাস। তখন আমাদের কাণ্ডারি ছিলেন মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বর্তমান সময়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় রয়েছেন তারই যোগ্য উত্তরসূরি বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন করোনা প্রতিরোধে।