সাংবাদিকদের পর্যবেক্ষন কার্ড প্রদানে গড়িমসির অভিযোগ।

টাইম ভিশন ডেস্কঃ রোববার ২০ জুন ২০২১: বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে সাংবাদিকদের পর্যবেক্ষন কার্ড প্রদানে গড়িমসি, পক্ষপাতিত্ব এবং হয়রাণীর অভিযোগ উঠেছে। ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, মাদারিপুর, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানের সাংবাদিকরা এমন অভিযোগ করেছেন। এদিকে ঝালকাঠি পৌরসভা নির্বাচনে দায়ীত্বে থাকা রিটানিং কর্মকর্তার পক্ষপাতিত্ব ও আইন বহিভুত ভাবে সাংবাদিকদের পর্যবেক্ষন কার্ড না দেওয়ায় ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি নজরুল ইসলাম ২০ জুন দুপুরে প্রতিকার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করেন।

লিখিত অভেযোগে দৈনিক যায়যায়দিন জেলা প্রতিনিধি নজরুল ইসলাম বলেন, আমি ঝালকাঠি পৌরসভার নির্বাচনে সংবাদ সংগ্রহের জন্য গত ১৯ জুন ২০২১ তারিখি রিটানিং কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো: কামাল হোসেনের কাছে কাগজপত্রসহ লিখিত আবেদন করি। ২০ জুন সকাল ১১টায় পর্যবেক্ষক কার্ডের জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে যাই। তখন রিটার্নিং কর্মকর্তা মোঃ কামাল হোসেন বলেন প্রেসক্লাবের অনুমোদন ব্যতিত অন্য সাংবাদিকদের সংবাদ সংগ্রহের জন্য পর্যবেক্ষণ কার্ড দিবেন না। কিন্তু কেনো দিবেন এমন প্রশ্ন করলে তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে যেতে বলেন।
সাংবাদিক নজরুল ইসলাম বলেন ঝালকাঠির প্রথমসারীর মিডিয়া সমকাল, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ডিবিসি নিউজ, একুশে টিভি, বৈশাখী টিভি, দৈনিক যায়যায়দিনসহ মিডিয়াকর্মীরা তাহলে পর্যবেক্ষণের সুযোগ পাবেন না ? এবং কেনো পাবেন না ? আমাদের অপরাধ কি ? প্রথম সারীর মিডিয়াকর্মী যারা প্রেসক্লাবের সদস্য নেই তারা কি সাংবাদিক নয়? তাদের অপরাধ কি কেনো তারা পর্যবেক্ষণ কার্ড পাবে না? এমন প্রশ্নে তিনি শুধু জেলা প্রশাসকের কাছে যেতে বলে আর কোন মন্তব্য করেননি।
এ অবস্থায় ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের বরাবরে কোর্ট ফি দিয়ে লিখিত অভেযোগ করেন সাংবাদিক নজরুল ইসলাম।

এ ব্যাপারে রোববার বিকেল ৪টার দিকে সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি কর্তৃক গঠিত কেন্দ্রীয় সেলের পক্ষ থেকে ঝালকাঠির রিটার্নিং অফিসার কামাল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হয়। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জানতে চাওয়া হয় তিনি প্রেসক্লাবের রেফারেন্সে সাংবাদিকদের পর্যবেক্ষক কার্ড প্রদান এটি নির্বাচন কমিশনের কোন নীতিমালায় রয়েছে এবং তিনি এই কথাটি বলেছেন কিনা জানতে চাইলে এড়িয়ে যান।

এদিকে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম এবং সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির যৌথ উদ্যোগে একটি সেল গঠন করা হয়েছে। ২১ জুন অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে যেকোন ধরনের সাংবাদিক হয়রাণী, নির্যাতন, পেশাগত দায়িত্বপালনকালে বাঁধাদানের ঘটনার তথ্য জানাতে ০১৭১২৩০৬৫০১, ০১৯৩৬৩৮৯১২১, ০১৩০৬৭৩৩৮০২, ০১৭২০৪৬২৮৫৬, নাম্বারে কল করতে পারবেন।