শালিখায় ঘুমন্ত অবস্থায় যুবককে কুপিয়ে জখম

টাইম ভিশন 24

শালিখা (মাগুরা) প্রতিনিধি: মাগুরার শালিখা উপজেলার দীঘলগ্রামে এক যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে উজ্জল (৩৫) নামের এক মাদক সম্রাট। গত ৬ নভেম্বর রাত ১ টার দিকে উপজেলার দীঘলগ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত মোঃ হাফিজুর রহমানকে উদ্ধার করে মাগুরা সদর হাসপালে ভর্তি করা হয়েছে। সে উপজেলার ভাটোয়াইল গ্রামের মৃত বরকত মোল্যার ছেলে। আহতের শশুর বাড়ীর লোকজন কামরুল ইসলাম, আবুল কাশেম,আশিকুল,মান্নান, আজবাহার সহ আরো অনেকেই জানান গত ৬ নভেম্বর আমাদের ভগ্নিপতি হাফিজুর রহমান আমাদের বাড়ী বেড়া এসে রাতে আমাদের ভাগ্নে দিদারুলের সাথে বারান্দার খাটে ঘুমই ছিল। ঘুমন্ত অবস্থায় আমাদের ভগ্নিপতি হাফিজুরকে হত্যা করার উদ্যেশ্যে রামদা দিয়ে গলায় কোপ দেয় দীঘোলগ্রামের মৃত হামিদ মোল্যার ছেলে সন্ত্রাসী উজ্জল। কিন্তু কোপটা গলায় না লেগে মুখে লাগে। এমন সময় তার চিৎকারে আমরা ঘুম থেকে উঠে দেখি সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী উজ্জল রক্তাত্ব রামদা হাতে নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। পূর্বে কোন শত্রুতা ছিল কিনা জানতে চাই তারা সাংবাদিকদের বলেন অনুমানিক ২০ দিন আগে গরু বিক্রিকে কেন্দ্র করে আমার ভগ্নিপতির সাথে ঝামেলা হয় উজ্জলের। গরুটা অন্যত্রে ৪২ হাজার টাকা বিক্রি করে দেওয়া হয়। গরু বিক্রির টাকা রাতে উজ্জল চুরি করতে এসেছিল। কিন্তু আমাদের কাছে ধরা খাই। বিষয়টি নিয়ে সালিশ মিমাংসা হওয়ার কথা ছিল কিন্তু হয়নি। এই ঘটনার পর থেকেই উজ্জল আমাদের ভগ্নিপতিকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছিল। আহতের শ্যালক কামরুল ইসলাম বলেন শুধু এই খানে শেষ নয়, আমাকে পেয়ে বখাটে ও মাদক সম্রাট এবং সন্ত্রাসী উজ্জল ধারালো অস্ত্র দিয়ে কয়েকবার আমাকে কুপানের চেষ্টা করেছে। এমনকি আমার একটি দোকান আছে ,সেই দোকান কয়েকবার ভাংচুরের চেষ্টাও করেছে। আমাকে আমার পরিবারকে নিয়মিত খুন জখমের হুমকী দিয়ে বলে তোদের বাড়ী গাঁজা রেখে কেসে ফাসিয়ে দেব। ঘটনার দিন রাতে আমার ভগ্নিপতিকে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। পরে আমরা এবং স্থানীয়রা অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্ভি করি। আমরা এখন জীবন নাসের হুমকীতে রয়েছি। প্রশাসন সহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করছি। শালিখা থানার এসআই ফরিদুজ্জামান ফরিদ জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। বিষয়টি নিয়ে থানায় মামলা হয়েছে। মামলা নং ৩/২০। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।