মুখোশের আড়ালে : সাধন কুমার দাস

মুখোশের আড়ালে
সাধন কুমার দাস

আজ কোন শিক্ষায় শিক্ষিত হলে,
কেবল অর্থেই কী সকল সুখ মেলে!
আছো কেউ সুশিক্ষায় শিক্ষিত হবার দলে?
তবে কে শিক্ষার আলোয় নিখাদ মানুষ হলে!

আজ ভালোবাসার নামে
পিপাসিত মন ভোগ সাধনে মত্ত,
ভালোবেসে ছলনার ছলে
প্রকৃত জীবনসঙ্গী পাওয়ায় কষ্ট!

চাও ধনবান হতে প্রচুর টাকা,
হয় যাকাত দানে পকেট ফাঁকা।
যদি লেশমাত্র করেছো দু’একবার,
তা প্রচারিবে দাতাকর্ণ সম বারবার।

জ্যান্ত মা’কে রেখে, মাটিতে গড়া ঐ মায়েরে পূজিলে,
হাজারো টাকার ভোগ-বিলাসে কত দেবতাকে ঘুষিলে!
পূজা করো, নামাজ পড়ো, মসজিদ-মন্দিরে করো দান
আজ সৃষ্টিকর্তার সন্তুষ্টিকে ভুলে চলেছো বাড়াতে মান।

তীর্থে চলো সাধুর বেশে, পাপমুক্তিতে নানান সাজ
কেন সাধুতার লেবাসে আজও তোমরা মহারাজ?
মিথ্যাকে সত্য বানাও, করো প্রচ্ছন্নতায় নিপিড়ন,
পর্বতারোহী তুমি চাও অসহায়েরা করুক আকিঞ্চন।

মৌলিক অধিকারে, বিনোদনের নামে নষ্টামি চলে
চৌদ্দ তলার বারে দুধের স্বাদ মেটাও পঁচা ঘোলে।
শরীরের যত্ন নেই, ফ্যাশানে সেজেছো সুন্দরী বেশ
লজ্জা নিবারণে ভাবনাহীন, অর্ধনগ্নে মেতেছে দেশ।

আজ স্বার্থের টানে বন্ধু শত্রু বনে, চলে অবিরাম গুলি
টাকায় ক্ষমতা মেলে, কী হবে জেনে নেতৃত্বের গুণাবলি!
তৈলে তিলোত্তমা, তৈলাক্ত ঐ মস্তিষ্ক সিন্ধুতরঙ্গে ভাসে,
তৈল গাবান হিড়িকে, তিলোত্তমা রুপে নয় ধনেতে হাসে।

আখের গোছানোতে ব্যস্ত তুমি, ব্যস্ত সমাজের সকলে
আপন সত্তাকে ভুলে, ভোগে আপনারে মন্দে ফাঁসালে,
চলো প্রমাণে, আর কত ছড়াবে প্রকাশ্যে মেকি বুলির!
অন্যের আত্মতৃপ্তিতে নিজের আত্মত্যাগও আত্মতৃপ্তির।